ইনানী সৈকতে পর্যটকের ভিড়

বিশেষ প্রতিনিধি, কক্সবাজার:

ইনানী সৈকতে এখন ভিড় করছে হাজারো পর্যটক। মাঘের শুরুতে শীতের তীব্রতা থাকলেও উখিয়ার পাথুরে সৈকত ইনানীতে এখন ভিড় করছে দেশি-বিদেশি পর্যটক।

পর্যটন মৌসুমে প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য উপভোগে উৎসুক মানুষের পদচারণায় এখানকার হোটেল, কর্টেজ, রিসোর্ট গুলো মুখরিত। সাথে ফিরেছে এখানকার অর্থনীতেও চাঙ্গা ভাব।

প্রতি বছর শীকালের পর্যটন মৌসুমে কক্সবাজারে থাকে পর্যটকের ভিড়। চলতি মৌসুমে জাতীয় নির্বাচনের কারণে পর্যটকের আগমনে কিছুটা ভাটা পড়লেও ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের পর বাড়ছে পর্যটকের আনাগোনা। তীব্র শীতে কক্সবাজার ছাড়িয়ে ইনানী পাথুরে সৈকতে এসে সাগরের নীল জলরাশিতে উচ্ছ্বাস আর আনন্দে মেতে উঠেন ভ্রমন পিপাসুরা।

শনিবার(১৯ জানুয়ারি) ইনানী সৈকত ঘুরে দেখাগেছে নানা বয়সের পর্যটকদের আনন্দ উচ্ছ্বাস। পর্যটকদের উচ্ছ্বাসে মুখরিত এখন উখিয়ার পাথুরে রানী খ্যাত ইনানী বীচ।

কক্সবাজারের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ সমুদ্র সৈকত। সকাল-বিকেল সমুদ্রতীরে বেড়াতে আর সৈকতে সূর্যাস্ত, সূর্য ডুবার দৃশ্য দেখার মজাই আলাদা। তাছাড়া সাগরের নুনা পানিতে গোসল যেন দূর করে দেয় কর্মক্লান্তি। আর এটি ইনানীর মত কোলাহল মুক্ত কোনো জায়গায় হলে তো কথাই নেই। পর্যটকদের মতে ইনানী সুমদ্র সৈকত যেন রোমান্সের হাতছানি। কথা বলার সময় এরকমই জানালেন ঢাকা, রাজশাহী ও সিলেটের কয়েকজন পর্যটক দম্পতি।

সাগরের ঢেউ পাথরের বুকে আঁচড়ে পড়ার দৃশ্য আসলেই মনোমুগ্ধকর। একদিকে সমুদ্রের বিস্তৃত নীল জলরাশি অন্যদিকে সবুজ বনানী আর পাহাড় শৃঙ্গ। এ যেন প্রকৃতির এক অপরূপলীলা। এসবই যেন মহান আল্লাহর অপার মহিমা প্রাচার করছে।

এখানকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভাল হওয়ায় নিরাপত্তার কোনো সমস্যা নেই। গত কয়েক দিন থেকে  উখিয়ার ইনানীতে আগমন ঘটেছে হাজার হাজার পর্যটক। দেখাগেছে এখানকার সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের মাঝে বেশ চাঙ্গা ভাব।

জাতীয় নির্বাচনের পর ইনানীতে যে ভাবে দেশি-বিদেশি পর্যটক আসা শুরু করেছে তাতে এখানকার পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা মনে করছেন বাকি পর্যটন মৌসুমটা তাদের বেশ ভালো যাবে।

ইনানীর হোটেল মোটেল গুলোতে খবর নিয়ে জানাগেছে, সব হোটেল এখন পর্যটকে ভরপুর, তাদের সেবা দিতে দিতে কর্তৃপক্ষ ক্লান্ত।

জালিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী ও ব্যবসায়ী নাজিম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, নির্বাচনের পর থেকে ইনানীতে প্রচুর পর্যটকের আসা-যাওয়া শুরু হয়েছে। ব্যবসা-বাণিজ্য ভালই হচ্ছে। এখানকার মানুষ অতিথি পরায়ণ। তাই পর্যটকদের প্রতিও তাদের রয়েছে সু-দৃষ্টি। এখানকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতিও খুব ভালো।

ইনানী টুরিস্ট পুলিশের ইনচার্জ শাখাওয়াত হোসেন বলেন,ইনানীতে আগত পর্যটকদের জন্য বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ছিনতাই, ইভটিজিং, অতিরিক্ত ভাড়াসহ নানা হয়রানী থেকে পর্যটকদের নিরাপদ রাখতে তারা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উখিয়া থানার ওসি মো. আবুল খায়ের বলেন, জাতীয় নির্বাচনের পর ইনানী সী-বিচে পর্যটকদের ভীড় বাড়ছে, তবে পর্যটকরা যেন হয়রানির শিকার না হয় সে ব্যাপারে সৈকতে ইনানী টুরিস্ট পুলিশ কাজ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

6 − five =

আরও পড়ুন