উখিয়ায় স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে লম্পট জাহেদের বিরুদ্ধে মামলা

fec-image

উখিয়ায় স্কুলের ক্লাসরুমে ঢুকে ছাত্রী ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে লম্পট জাহেদুল ইসলামের (৩৩) বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে ছাত্রীর পিতা মোঃ শাহাজাহান। শুক্রবার রাতে পুলিশ এই মামলা রুজু করেন। যার নং-৩০, তাং-১৯/০৭/২০১৯ইং। এ ঘটনায় পুলিশ ইতিমধ্যে বেশ কয়েকবার বখাটে জাহেদকে আটককে অভিযান চালিয়েছে বলে পুলিশ সুত্রে জানিয়েছে।

সুত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার প্রতিদিনের ন্যায় পূর্বডিগলিয়াপালং মুরাপাড়া গ্রামের মোঃ শাহজাহানের ৫ম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়ে কোচিং করার জন্য পূর্বডিগলিয়াপালং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় যায়। বিদ্যালয়ে প্যারা শিক্ষক নুরুল আলম নুরু বিদ্যালয়টির দরজা-জানালা খুলে দিয়ে পাশ্ববর্তী দোকানে নাস্তা করতে গেলে ওই মুহুর্তে লম্পট জাহেদ স্কুলের ক্লাস রুমে ঢুকে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। তার চিৎকারে অন্যান্য ছাত্র/ছাত্রীরা দৌড়ে গিয়ে প্যারা শিক্ষক নুরুল আলমকে বললে সে সাথে সাথে স্কুলে আসে। এ সময় দরজা খূলে লম্পট জাহেদ পালিয়ে যায়। ঘটনার পর থেকে বিষয়টি নিয়ে এলাকার অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। লম্পট জাহেদ একই এলাকার কেরামইত্তা পাড়া এলাকার মোঃ কালুর ছেলে। তার স্ত্রী ও ২ সন্তান রয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ফরহাদ জাহি জানান, ঘটনার পর থেকে বেশ কয়েকবার আসামী বাড়ীতে অভিযান চালানো হয়েছে। শুক্রবার তার ভাই ও বোনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এসময় জাহেদের ছোট ভাই ওবাইদুল্লাহ শার্টের পকেটে ৭টি ইয়াবা পাওয়া যায়। যার ফলে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফখরুল ইসলাম ১৫দিনের সাজা প্রদান করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। বোনকে মুছলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আবুল মনসুর জানান, ভিকটিমের জবানবন্ধি মতে মামলা রুজু করা হয়েছে। ভিকটিমের পিতা মোঃ শাহজাহান বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণের চেষ্টায় এ মামলাটি রুজু করেছে। এতে প্রকৃত ঘটনাকারী মোঃ কালুর ছেলে জাহেদুল ইসলামকে আসামী করা হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: উখিয়া, ধর্ষণ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen + two =

আরও পড়ুন