কাঁচা মরিচের দামে ঝাল, বেড়েছে সবজির দাম!

fec-image

চালের বাজারে স্থিরতা থাকলেও অস্থিরতা ছড়িয়েছে কাঁচামরিচ-সবজিতে। এই বর্ষায় ভাত বা রুটি যাই হোক সঙ্গে সবজি তো লাগবেই। কিন্তু দেখা গিয়েছে সবজির এই বাজার খুব চড়া। ৫০ টাকার নিচে কোন সবজি নেই বললেই চলে।

মঙ্গলবার বাহারছড়া বাজারে কথা হয় বেসরকারি চাকরিজীবী হাসিবুল্লাহ’র সঙ্গে। তিনি বলেন, ” বাজেট বৃদ্ধির কারণে চালের দাম কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে। সেটা না হয় মানলাম। কিন্তু সবজির বাজারে আগুন লাগল কেন? নিত্যদিনের খাবারের চাহিদা মেটাতে যে ব্যয় হচ্ছে তাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম তো বাড়ছেই তার মধ্যে আবার সবজির চড়া মূল্য। “

সবজির মূল্যবৃদ্ধির কারণে বাজারে গিয়ে অস্বস্তিতে পড়তে হচ্ছে জাবেদ হাসান এর মতো স্বল্প ও নির্দিষ্ট বেতনের চাকরিজীবিদের।এমনকি অনেক স্থানে ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে কথাকাটাকাটির ঘটনাও ঘটছে।

গতকাল শহরের বড়বাজার, কালুর দোকান ঘুরে দেখা যায়- প্রতি কেজি কাঁচা মরিচের দাম ২০০ টাকা থেকে ২২০টাকায় বিক্রি হচ্ছে যার দাম গত সপ্তাহেও ছিল ৭০ থেকে ৮০ টাকায় অর্থাৎ কয়েকদিনের ব্যবধানে কাঁচামরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে ১০০থেকে ১২০টাকা।শুধু কাঁচা মরিচ নয় বেড়েছে অন্যান্য সবজির দামও। কাঁকরুল, তিতকরলা, বরবটি শিমের দাম প্রতি কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা করে।মিষ্টি কুমড়া কেজিতে ২০-২৫টাকা হলেও এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৩০টাকায়।পটল,ঝিঙ্গার দামও বেড়েছে প্রতি কেজিতে ৫টাকা থেকে ১০টাকা পর্যন্ত। আবার টমেটোর দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ।ভোগ্য এই সবজি গত সপ্তাহে ৭০থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হলেও এখন বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা থেকে ১২০ টাকায়।

কালুর দোকানের সবজির খুচরা বিক্রেতা রহিম জানান,” আমাদের কেনা বেশি তাই আমাদেরও বিক্রি করতে হচ্ছে চড়া দামে। আড়ৎদার আমাদের কাছ থেকে দাম বাড়িয়ে নিচ্ছে যার কারণে আমাদের ও বেশি টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে।”

সবজির দাম বৃদ্ধি পেলেও মসলা জাতীয় পণ্য গুলোর তেমন পরিবর্তন দেখা যায়নি।তবে পেঁয়াজ রসুনের দাম আগের চেয়ে কিছুটা বেড়েছে।প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৫/৮ টাকা অর্থাৎ কয়েকদিন আগেও পেয়াজ প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ২৮ টাকায় এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৩৬ টাকায়।রসুনের দাম বেড়েছে প্রতি কেজিতে প্রায় ২০টাকা।নিত্যপ্রয়োজনীয় এই রসুন কেজি এখন প্রায় ১৬০টাকা।

এই ব্যাপারে বড় বাজারে সবজির আড়ৎদার আমজাদ এর কাছে সবজির এমন মূল্য বৃদ্ধির কারণ জানতে চাইলে প্রতিবেদককে জানান,”সারাদেশে এখন প্রচুর বৃষ্টি আবার কোন কোন অঞ্চলে বন্যা হচ্ছে। যার কারণে যাতায়াত ব্যবস্থার অবনতি ঘটছে। আমরা সঠিক সময়ে মালামাল পাচ্ছি না, দেখা যাচ্ছে যা মালামাল পাচ্ছি তাতে বৃষ্টির কারণে অনেক সবজি পঁচে গেছে। এছাড়াও বন্যার কারণে সবজি চাষের জমি গুলো প্লাবিত হচ্ছে তাই চাষিরা সবজি বাজারে সবজি দিচ্ছে বাড়তি দামে সব মিলিয়ে সবজির দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।”

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: কক্সবাজার, বাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × two =

আরও পড়ুন