কাউখালীতে ৫ বছরের শিশু সন্তান হত্যাকারী পিতা গ্রেফতার

কাউখালী প্রতিনিধি:
কাউখালীতে নিজের হাতে ৫ বছরের শিশু সন্তানকে হত্যার দায়ে পিতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

রবিবার(১৮ নভেম্বর) আত্মীয় ও স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সন্তান হত্যাকারী পিতার নাম এরেক্কু চাকমা (২৬)। সে খাগড়াছড়ি গামরী ঢালা এলাকার বাসিন্দা মৃত সুবল চাকমার ছেলে।

জিজ্ঞাসাবাদে সে তার সন্তান হত্যার কথ স্বীকার করে। তাকে আটকের পর কাউখালী পুলিশের হাতে সোপর্দ করে স্ত্রী ও স্থানীয়রা। হত্যাকারী পিতার ভাষ্য অনুযায়ী পুলিশ তাকে নিয়ে দুর্গম জঙ্গলের ভেতর থেকে শিশুটির গলিত লাশ উদ্ধার করে।

জানা যায়, স্ত্রী চাকুরী করেন চট্টগ্রামের একটি পোষাক কারখানায়, স্বামী বেকার। এ নিয়ে হরহামেশাই ঝগড়া বিবাদ চলে দু’জনের মাঝে। এরই খেসারত দিতে হলো ৫ বছরের শিশু নিরব চাকমাকে। ৮ নভেম্বর চট্টগ্রামের বাসায় স্ত্রীর সাথে ঝগড়া করে এমাত্র ছেলেকে কাউখালীতে এনে ৯ নভেম্বর বিকাল ৫টায় উপজেলার বগাপাড়া এলাকায় গলা টিপে হত্যা করে দুর্গম পাহাড়ে মাটি চাপা দিয়ে রাখে পাষণ্ড পিতা। এ ঘটনায় ঘাতক পিতাকে আটক করেছে কাউখালী থানা পুলিশ। শিশুটির লাশ উদ্ধার করে রাঙ্গামাটি মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। থানায় মামলার পক্রিয়া চলছে।

পুলিশ জানায়, খাগড়াছড়ি গামরী ঢালা এলাকার বাসিন্দা মৃত সুবল চাকমার ছেলে এরেক্কু চাকমা (২৬) স্ত্রীসহ চট্টগ্রামে বসবাস করতো। তার স্ত্রী চট্টগ্রামের একটি পোষাক কারখানায় কর্মরত ছিলো। বিবাহিত জীবনে তাদের একমাত্র অবলম্বন সন্তান নিরব চাকমা (৫)। স্ত্রী পোষাক করখানায় কাজ করলেও স্বামী ছিল বেকার। ফলে এ নিয়ে দু’জনের মাঝে প্রায়শই ঝগড়া বিবাদ চলতো।

৮ নভেম্বর কর্মস্থলে যাওয়ার আগে একমাত্র সন্তানকে স্বামীর হেফাজতে রেখে যায় এবং তাকে দেখাশুনা করতে বলে স্ত্রী। কিন্তু তার স্বামী তাতে অপারগতা প্রকাশ করলে দু’জনের মাঝে বাকবিতণ্ডা হয়। সন্তানের দেখাশুনা করতে অপারগতার ফলে স্ত্রী রাগান্বিত হয়ে সন্তানকে নিয়ে বাসা থেকে চলে যেতে বলেন।

৯ নভেম্বর স্ত্রী কর্মস্থলে চলে গেলে স্বামী এরেক্কু চাকমা একমাত্র সন্তান নিরবকে নিয়ে কাউখালীর ঘাগড়া ইউনিয়নের দুর্গম বগাপাড়া এলাকায় আসে। দিনভর এদিক সেদিক ঘুরোঘুরি করে দু’জনই। সরাদিনের ক্ষুধার্থ শিশু বাবার কাছে বার বার খাবারের জন্য আকুতি জানাচ্ছিলো। কিন্তু কোনো খাবার পায়নি বাবার কাছ থেকে।

বেলা গড়িয়ে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে পাষণ্ড পিতা একমাত্র সন্তানকে বগাপাড়ার নির্জন স্থানে নিয়ে গিয়ে গলা টিপে হত্যা করার পর মাটি ও জঙ্গল দিয়ে চাপা দিয়ে চলে যায়। এর পর দীর্ঘ সময় স্ত্রী স্বামীর সাথে যোগযোগ করতে ব্যর্থ হয়। পরে আত্মীয় স্বজনের কাছে জানতে পারে তার স্বামী রাঙ্গামাটি রাজ বন বিহারে অবস্থান করছে।

কাউখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মনজুর আলম জানান, পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাঙ্গামাটি প্রেরণ করে। এ ব্যাপারে কাউখালী থানায় হত্যা মামলার পক্রিয়া চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 3 =

আরও পড়ুন