গোপনে ছেড়ে দেয়া হয় রোহিঙ্গা হত্যাকারী সেই ৭ মিয়ানমার সেনাকে

fec-image

২০১৭ সালে রাখাইনের একটি গ্রামে নিরপরাধ ১০ সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমকে লাইন ধরে বসিয়ে ঠাণ্ডা মাথায় গুলি করে হত্যার দায়ে ১০ বছরের জেল হয় মিয়ানমারের সাত সেনাসদস্যের।

কিন্তু এক বছর না যেতেই কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয় তাদের। এ নিয়ে নিন্দার ঝড় বইছে সারাবিশ্বে। খবর রয়টার্সের।

অথচ ওই নৃশংসতার অনুসন্ধানী খবর প্রকাশ করায় রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে কথিত সরকারি গোপন তথ্যফাঁসের দায়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয় মিয়ানমার সরকার।

পরে অবশ্য আন্তর্জাতিক চাপের মুখে ১৬ মাস অবৈধভাবে আটক রাখার পর গত ৬ মে ওয়া লোন এবং কেয়াও সোয়েও নামে রয়টার্সের ওই সাংবাদিকদের রাষ্ট্রপতির সাধারণ ক্ষমার আওতায় মুক্তি দেয়া হয়।

অন্যদিকে রাখাইনের ইন দিন গ্রামে বর্বরতা চালানো সেই সেনাসদস্যদের গত বছরের নভেম্বরেই কারাগার থেকে মুক্তি দেয়া হয়। তবে বিষয়টি চেপে রেখেছিল দেশটির সরকার। সেনাবাহিনীর চাপে তাদের ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় মিয়ানমার।

সস্প্রতি রাখাইনের সেই কারাগারের দুই কারারক্ষী ওই সেনাসদস্যদের মুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন। ২০১৭ সালে মিয়ানমারের রাখাইনে সেনাবাহিনীর চালানো হত্যাযজ্ঞ থেকে বাঁচতে তখন নতুন করে আরও সাড়ে ৭ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 − fourteen =

আরও পড়ুন