“প্রায় ১৪ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভাঙা ও অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে।”

ঘুর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে কুতুবদিয়ায় ১০ গ্রাম প্লাবিত

ঘুর্ণিঝড় ফণী’র প্রভাবে কুতুবদিয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে সাগরের পানি প্রবেশ করে অন্তত ১০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

শুক্রবার বিকাল থেকে অস্বাভাবিক জোয়ারের লবনাক্ত পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সহজেই ভাঙ্গা বেড়িবাঁধ ও বাধ টপকিয়ে পানি লোকালে প্রবেশ করে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়। প্রায় ১৪ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভাঙা ও অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে আছে।

আলী আকবর ডেইল তাবালের চর, হায়দর পাড়া, বড়ঘোপ মুরালিয়া, অমজাখালী, রোমাইপাড়া, উত্তর ধুরু কাইছার পাড়া, ফয়জানি পাড়াসহ বিভিন্ন স্থানে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করেছে। এছাড়া লেমশীখালী পেয়ারাকাটা, সতরুদ্দিন, কৈয়ারবিল কিছি অংশে বেড়িবাঁধ উপচে লোনা পানি ভিতরে ঢুকছে। ঝড়ের প্রভাবে অন্তত ৪০০ একর লবণ, ফসলি জমির ক্ষতি সাধন হয়।

অর্ধশত কাচা ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে পানির স্রোতে। উত্তর ধুরুং ইউপি চেয়ারম্যান আ স ম শাহরিয়ার চৌধুরী বলেন, সময়মত বেড়িবাঁধ নির্মাণ না করায় সহজেই জোয়ারের পানি লোকালয়ে প্রবেশ করে ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে কৃষকদের। এ ছাড়া দেড়লক্ষ দ্বীপের মানুষ আতংকে দিন কাটায়। তিনি দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ সংস্কারের দাবি জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপক কুমার রায় জানান, বেশ কয়েকটি এলাকায় ঘুর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে এবং নতুন কিছু বাধ ভেঙে গিয়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে অন্তত ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এ বিষয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সরেজমিন প্রদর্শন করে জানানো হয়েছে।

ঘটনাপ্রবাহ: ১০ গ্রাম প্লাবিত, কুতুবদিয়ায়, ঘুর্ণিঝড় ফণীর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 + seventeen =

আরও পড়ুন