আওয়ামী লীগ নেতা চা থোয়াই মং হত্যার ঘটনায়

জেএএসের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও বান্দরবান জেলা সাধারণ সম্পাদকসহ আটক ৫

fec-image

বান্দরবানে অপহরণের পর খুন হওয়া সাবেক পৌর কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা চথোয়াই মং মারমার লাশ উদ্ধারের পর হত্যাকারীকে আটকের উদ্দেশ্যে ব্যাপক অভিযান শুরু হয়েছে।

আওয়ামী লীগের এ নেতা হত্যার ঘটনায় পুলিশ এ পর্যন্ত ৫ জেএসএস নেতাকে আটক করেছে। আটকৃতরা হলো- জেএসএস এর কেন্দ্রীয় নেতা সাংগঠনিক সম্পাদক ও আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য কেএস মং মারমা, বান্দরবান জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও রোয়াংছড়ি উপজেলা পরিষদের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যবা মং মারমা, হেডম্যান থৈলা প্রু মারমা, জডার্ন পাড়ার কারবারী মংহ্লাপ্রু ত্রিপুরা

আজ শনিবার বান্দরবানের বিভিন্ন জায়গা থেকে তা‌দের‌ আটক করা হয়। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বান্দরবান সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শহিদুল ইসলাম।

এদিকে চথোয়াইর লাশ উদ্ধারের পর থেকে বান্দরবানের বিভিন্ন জায়গায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

হত্যার এই ঘটনার জন্য আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল জনসংহতি সমিতিকে দায়ী করেছে আওয়ামী লীগ। যদিও জনসংহতি সমিতির নেতারা এ ঘটনার সাথে তাদের সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছে।

পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার জানান, কোনো সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়া গেলে অথবা এই ঘটনার সাথে তারা জড়িত যদি থাকে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। সাথে সাথে যারা তাদেরকে অস্ত্র টাকা এবং এ কাজ করার জন্য সাহস জোগাচ্ছে তাদের কেউ ছাড় দেওয়া হবে না।

আইনগত ভাবে প্রত্যেক অপরাধীকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে। এছাড়াও হত্যাকাণ্ডের এই ঘটনায় কাল রোববার বান্দরবানে অর্ধ দিবস হরতালের ডাক দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগহরতালের সমর্থনে আওয়ামী লীগ রাতেই শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

উ‌ল্লেখ্য, অপহর‌ণের তিন‌দিন পর বান্দরবান পৌরসভার ৫নং ওয়া‌র্ডের সা‌বেক ক‌মিশনার ও পৌর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপ‌তি চথোয়াই মং মারমা‌র লাশ আজ শ‌নিবার দুপু‌রে কুহালং ইউনিয়নের জর্ডান পাড়া থে‌কে উদ্ধার ক‌রে‌ছে পু‌লিশ।

গত ২২মে বুধবার রাত সা‌ড়ে নয়টার দি‌কে চ‌থোয়াইমং মারমা‌কে উজি হেডম্যান পাড়ার খামার বাড়ি থে‌কে অ‌স্ত্রের মু‌খে পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা অপহরণ ক‌রে নি‌য়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

thirteen + seventeen =

আরও পড়ুন