নকলের অভিযোগে পাসওয়ার্ড:  সেন্সর বোর্ডকে শাকিব খানের চিঠির উত্তর 

fec-image

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের পাঠানো চিঠির জবাব দিলেন ‘পাসওয়ার্ড’ চলচ্চিত্রের প্রযোজক ও নায়ক শাকিব খান। গতকাল ১ জুলাই সেন্সর বোর্ড তা গ্রহণ করেছে বলে জানিয়েছেন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান নিজামুল কবীর। এতে শাকিব খান ও সহ-প্রযোজক মো. ইকবাল ছবিটি ‘নকল নয়’ বলে দাবি করেছেন। এবং এর পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেছেন তারা। উল্লেখ করেন, এটি কোনোভাবেই কোরিয়ান ‘দ্য টার্গেট’ ছবির নকল নয়।

গত ২৪ জুন ‘নকল ছবি কিনা’ তা জানতে চেয়ে ছবির প্রযোজকদের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠায় সেন্সর বোর্ড। তারই জবাব দিলেন শাকিব খান। এর আগে গত ঈদে ১৭৭টি হলে মুক্তি পায় শাকিব খান ও মোহাম্মদ ইকবাল প্রযোজিত চলচ্চিত্র ‘পাসওয়ার্ড’।

ছবিটি নকল ও এর সপক্ষে পরিচালক মালেক আফসারীর নজিরবিহীন বক্তব্য প্রসঙ্গে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডে অভিযোগপত্র জমা দেয় নাট্য ও বিজ্ঞাপন নির্মাতা আনন্দ কুটুম। বলা হয়, কোরিয়ান ছবি ‘দ্য টার্গেট’ থেকে নকল করা হয়েছে ‘পাসওয়ার্ড’।

অভিযোগপত্রে আনন্দ কুটুম উল্লেখ করেন, “পাসওয়ার্ড’ ছবির কোথাও উল্লেখ নেই এটি ‘দ্য টার্গেট’ ছবির কপিরাইট নিয়ে নির্মিত হয়েছে। ছবির কোথাও উল্লেখ নেই এটি বিদেশি সিনেমার ছায়া অবলম্বনে নির্মিত। পুনঃসেন্সরের মাধ্যমে পরিষ্কার হওয়া যাবে যে ‘পাসওয়ার্ড’ ছবিটি নকল। লোকেশন ভিন্ন হলেও দুটো সিনেমার দৃশ্যধারণ করা হয়েছে একইভাবে। গল্প, দৃশ্য, শট ও অ্যাকশনে নকলের পাশাপাশি প্রপসের ক্ষেত্রেও নকল করার প্রবণতা ছিল ছবিটির মধ্যে।

তিনি বলেন, যখন একজন পরিচালক বিদেশি সিনেমা নকল করেও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও গণমাধ্যমে বলেন এটা নকল নয়- গবেষণা, তখন পরবর্তী প্রজন্মের নির্মাতারা আশাহত হন। অন্যের গল্প এবং দৃশ্যধারণ নিজের নামে চালিয়ে দেওয়া কি নিয়মবহির্ভূত নয়?’’

এদিকে সেন্সর বোর্ডে পাঠানো চিঠির ব্যাখ্যায় প্রযোজকদের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘‘দ্য টার্গেট’ সোয়া ১ ঘণ্টার ছবি। আর ‘পাসওয়ার্ড’ ২ ঘণ্টা ২০ মিনিটের ছবি। একঘণ্টা বেশি এর দৈর্ঘ্য। এছাড়াও ‘দ্য টার্গেট’-এর চরিত্রের সঙ্গে ‘পাসওয়ার্ড’-এর চরিত্র মিলে না। কোরিয়ান ছবিতে কোনও নায়িকা চরিত্র কিংবা খলনায়ক মিশা সওদাগরের মতো চরিত্র নেই।’’

চিঠির ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট কিনা জানতে চাওয়া হয়েছিল সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান নিজামুল কবীরের কাছে। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রযোজকের কাছ থেকে নোটিশের জবাব পেয়েছি। চিঠির বক্তব্য কেমন তা নিয়ে আমি মন্তব্য করতে চাই না। ছবিটি একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে আছে। এর বিরুদ্ধে নকলের অভিযোগ এসেছে। তাই আমরা ব্যাখ্যা চেয়েছিলাম। সেই ব্যাখ্যা কতটুকু গ্রহণযোগ্য এখন তা মিটিংয়ের মাধ্যমে দেখা হবে।

ছবিটি মুক্তির পর নকলের অভিযোগ ওঠে। সেই অভিযোগের আগুনে ঘি ঢালেন পরিচালক নিজেই। তিনি ঘোষণা দেন, নকল প্রমাণ করতে পারলে ১০ লক্ষ টাকা পুরস্কার এবং চলচ্চিত্র নির্মাণ ছেড়ে দেবেন। ছবিটির কেন্দ্রীয় চরিত্রে আছেন শাকিব খান, ইমন ও বুবলী। আরও অভিনয় করেছেন মিশা সওদাগর, অমিত হাসানসহ অনেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four × one =

আরও পড়ুন