“ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন ৭৫সালে জাতির পিতাকে হত্যা করা হলে লেখাপড়াটা আর হয়নি”

নির্বাচনী কঠিন সময়ে যারা পাশে ছিলেন তাদের কাছে চির কৃতজ্ঞ: দীপংকর

fec-image

রাঙামাটি আসনের সংসদ সদস্য ও কেন্দ্রীয় আ’লীগের নেতা দীপংকর তালুকদার বলেছেন, আমার নির্বাচনী সময়ে যারা পাশে থেকে সাহায্য সহযোগিতা করেছেন তাদের কাছে আমি চিরকৃতজ্ঞ।

শুক্রবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনেটর সদস্য মনোনিত হওয়ায় রাঙামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আওয়ামী পেশাজীবী পরিষদ রাঙামাটি শাখা কর্তৃক সংবর্ধনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এমপি দীপংকর আরও বলেন, ৬৯এর গণভ্যুত্থানে ঢাকায় লেখাপড়া অবস্থায় পাকিস্তানীদের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলাম। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন ৭৫সালে জাতির পিতাকে হত্যা করা হলে লেখাপড়াটা আর হয়নি। অনার্স পাস করার পর পড়ার পাঠ চুকে যায়। নানা সংগ্রাম ত্যাগ তিতিক্ষা শিকার হয়ে রাজনীতি জীবন পার করেছি।

দীর্ঘ এত বছর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর সুপারিশে স্পীকার যখন আমাকে সিনেটরের সদস্য হিসেবে মনোনয়ন প্রদান করেন তখনি মনে অনেক আনন্দ লাগে। এজন্য প্রধানমন্ত্রী এবং স্পীকারকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

এমপি দীপংকর জানান, প্রত্যোক শিক্ষার্থী চাই স্ব-বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাবর্তন পেতে। আমিও তাই চেয়েছিলাম। কিন্তু রাজনৈতিক বাস্তবতায় আমি পেলাম না।

এমপি আরও জানায়, এ পেশাজীবী পরিষদ সংগঠনটি আমার দুর্দিনে পাশে ছিলো। এখনো তারা ভাল কাজ করে যাচ্ছে।

সংগঠনটির আহ্বায়ক মোতাহার হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব নাছির উদ্দীনের সঞ্চলনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, রাঙামাটি জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি চিংকিউ রোয়াজা, রুহুল আমীন, নিখিল কুমার চাকমা, পেশাজীবী পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক সনদ কুমার বড়ুয়া, স্বপন কুমার দে, প্রকৌশলী মো. রুবায়েদ, রাঙামাটি সরকারি কলেজের উপাধ্যক্ষ তুষার কান্তি বড়ুয়া, রাঙামাটি পাবলিক কলেজের অধ্যক্ষ তাসাদ্দিক হোসেন কবিরসহ সংগঠনটির নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে দলের নেতা-কর্মীরা দীপংকর তালুকদারকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও ক্রেষ্ট দিয়ে সংবর্ধনা প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 − 5 =

আরও পড়ুন