উন্নয়ন কর্মকান্ড ব্যাহত হওয়ার শংকা

পানছড়িতে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব গ্রহণে বিলম্ব

fec-image

শপথ গ্রহণের দীর্ঘদিন পরও দায়িত্ব বুঝে নেয়নি পানছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানরা। ১৯ মে (রবিবার) থেকে তাদের অফিস করার কথা ছিলো। সেদিন প্রশাসনও প্রস্তুত থাকলেও কেউ আসেননি।

দুই ভাইস চেয়ারম্যান ঐদিন অসুস্থ থাকার কারনে আসতে না পারলেও তারা এখন দায়িত্ব বুঝে নিতে প্রস্তুত। তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি নন।

এদিকে চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানরা দায়িত্ব গ্রহণে বিলম্ব হওয়ায় উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নে জটিলতা সৃষ্টির আশংকা দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে হতাশ পানছড়িবাসী।

গত ১৮ মার্চ অনুষ্ঠিত ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রসীত বিকাশ খীসার ইউপিডিএফ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শান্তি জীবন চাকমা ও অপর দুই ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

গত ২৪ এপ্রিল চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে বিভাগীয় কমিশনারের কাছে খাগড়াছড়ি জেলা থেকে নির্বাচিত অপর চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের পানছড়ি থেকে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানরা শপথ গ্রহণ করেন। ইতিমধ্যে অপর উপজেলা থেকে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানরা দায়িত্ব গ্রহণ করলেও পানছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানরা দায়িত্ব গ্রহণ করেননি।

জানা গেছে, গত ১৯ মে (রবিবার) পানছড়ি উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের গ্রহণের পরপরই প্রথম পরিষদের প্রথম মাসিক সভা ও সমন্বয় সভার হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু তারা উপস্থিত না হওয়ায় সব কিছু পন্ড হয়ে যায়।

একটি সূত্র জানায়, হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামী হওয়ায় শপথ নেওয়ার পরপরই চেয়ারম্যান শান্তি জীবন চাকমা আত্মগোপণে চলে যায়। ফলে তার দায়িত্ব গ্রহণ নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

তবে নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যানগণ দায়িত্ব গ্রহণে প্রস্তুত রয়েছেন।

এ বিষয়ে যোগাযোগের জন্য বহুবার চেষ্টা করা হলে শান্তি জীবন চাকমার মোবাইল ফোন (০১৮৬৭৯৪৩১৮৫) নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

সূত্রটি জানায়, শান্তি  জীবন চাকমার বিরুদ্ধে হত্যা ও  চাঁদাবাজীসহ একাধিক মামলা রয়েছে। চলতি বছরে ৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় খাগড়াছড়ির পানছড়িতে জেএসএস (এমএন) গ্রুপের কর্মী রনি ত্রিপুরা (৩০) প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত হয়। এ ঘটনায় (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে রনির ত্রিপুরার মা লতাতি ত্রিপুরা বাদি হয়ে পানছড়ি থানায় মামলাটি করেন। মামলা নং ০১ তারিখ:০৯ ফেব্রুযারি ২০১৯ ধারা ৩০২/৩৪ দ:বি:। এ মামলায় শান্তি জীবন চাকমা আসামী।

এছাড়াও গত বছরের ৭ মার্চ অবরোধ চলাকালে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের স্বনির্ভর এলাকায় পুলিশের উপর প্রসীতপহৃী পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস  ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট  ( ইউপিডিএফ) কর্মী হামলার ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান শান্তি জীবন চাকমাসহ ইউপিডিএফ ও সহযোগী সংগঠনের ১৩৪ নেতাকর্মীকে আসামী করে খাগড়াছড়ি সদর থানায় মামলা নং ০৪, তারিখ ০৭ মার্চ ২০১৮, ধারা ১৪৭/১৪৮/৩৩২/১৪৯/৩০৭/৩৩৩ দ:বি: মামলা করা হয়।

অপর দিকে গত বছরের ২১ মার্চ খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের ডাকা সড়ক অবরোধের সময় গুলি, পেট্রোল বোমা হামলা, ভাংচুর ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় উপজেলা চেয়ারম্যান শান্তি জীবন চাকমাসহ আরও ৮০ নেতাকর্মীকে আসামী করে খাগড়াছড়ি সদর থানায় মামলা নং ০৭ তারিখ, ২১ মার্চ ২০১৮ ধারা ১৪৩/৩২৩/৩৪১/৪৩৫/৪২৭ দ:বি: দায়ের করা হয়। এ মামলায় শান্তি জীবন চাকমা আসাসী।

সামনে জুন মাস। এ মাসে উপজেলার উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের কথা রয়েছে। কিন্তু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব গ্রহণে বিলম্ব হওয়ায় উপজেলার উন্নয়ন কর্মকান্ড হোঁচট খাওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. বাহার মিয়ার দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলেও তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, জনগণের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা দায়িত্ব গ্রহণে বিলম্ব করলে পানছড়িবাসী উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হবে। আর দায়-দায়িত্ব তাদেরকে নিতে হবে।

পানছড়ি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান চন্দ্র দেব চাকমা বলেন, ১৯ মে (রবিবার) শারীরিক অসুস্থতার কারনে যেতে পারেনি। এখন উপজেলা প্রশাসন ডাকলে গিয়ে দায়িত্ব গ্রহণ করবো।

একই কথা বলেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মনিতা ত্রিপুরা

তিনি বলেন, শপথ নেওয়ার পর থেকে অসুস্থ। তাই যেতে পারিনি। এখন ডাকলে যাবো।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদুল ইসলামের সাথে (২২ মে) যোগাযোগ করা হলে তিনি সাফ জানিয়ে দেন এ বিষয়ে আমি কথা বলবো না। এক পর্যায়ে তিনি ফোন কেটে দেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চেয়ারম্যান, দায়িত্ব গ্রহণ, পানছড়ি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen − 8 =

আরও পড়ুন