“মো. ইলিয়াস মেয়েদেরকে দেখলেই উত্তক্ত করতেন”
রোয়াংছড়িতে

বাঙালি কর্তৃক উপজাতি ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা: ধর্ষক আটক

fec-image

 

রোয়াংছড়িতে ঘরে ঢুকে ৭ম শ্রেণির এক উপজাতি ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টাকালে মো. ইলিয়াস (৩৫) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশের হাতে সোর্পদ করেছে স্থানীয়রা।

বুধবার (১২ জুন)  রাত দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায় আটককৃত যুবক মো. ইলিয়াস (৩৫) সাতকানিয়া উপজেলায় পুরানগর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড পুরানগর গ্রামের বাসিন্দা মো. মুক্তার আহাম্মদ এর ছেলে ।

মো. ইলিয়াস নিজ গ্রামের বাড়ি পুরানগর থেকে রোয়াংছড়িতে এসে আলেক্ষ্যং ইউনিয়ন ওয়াগই পাড়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে এলাকার মুডি দোকান দিয়ে ব্যবসা করতেন। তার পাশে চা দোকানীর এক কিশোরী মেয়েকে  ধর্ষণের চেষ্টাকালে স্থানীয়দের হাতে ধরা পড়ে।

ভিক্টিম কিশোরীর বাবা (তঞ্চঙ্গ্যা) বলেন, বুধবার রাত প্রায় দেড়টার দিকে হঠাৎ আমার মেয়ের চিৎকার শুনে আমার স্ত্রীর সহ মেয়ের শোয়ার ঘরে দিকে ছুটে যায়। তখন আমার দোকানে পাশের দোকানদার মো. ইলিয়াস আমার মেয়ের শোয়ার ঘর থেকে বের হয়ে পালানোর চেষ্টাকালে আমি মো. ইলিয়াসকে ধরে ফেলি এবং আমার চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আটক করে তাকে।

তিনি আরো বলেন, মো. ইলিয়াস মেয়েদেরকে দেখলেই উত্তক্ত করতেন। এই ক’দিনের আগেও আমার ছোট ভাইয়ের বউয়ের সাথে অসভ্য আচরণ করেছে।

তিনি বলেন, আলেক্ষ্যং ইউপি চেয়ারম্যান বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যাকে ঘটনার ব্যাপারে অবহিত করা হলে তিনি এসে রোয়াংছড়ি থানার পুলিশকে খবর দিয়ে রাতে টহলরত পুলিশ ফোর্স  এর হাতে মো. ইলিয়াসকে সোর্পদ করা হয়।

রোয়াংছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শরিফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গতকাল বুধবার রাতে ভিক্টিম কিশোরীর ঘরে প্রবেশ করে যৌনকামনা চরিতার্থ করার চেষ্টাকালে মো. ইলিয়াসকে স্থানীয়রা আটক করে পুলিশকে খবর দেয়। এতে পুলিশ সংবাদ পেয়ে তাকে থানা নিয়ে আসা হয়েছে। সকালে ভিক্টিমের বাবা থানায় এসে আসামির বিরুদ্ধে দেশে প্রচালিত আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আটক, ধর্ষণের চেষ্টা, রোয়াংছড়িতে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

6 − 4 =

আরও পড়ুন