বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান বড় মহেশখালী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়

fec-image

বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে দেশব্যাপী শুরু হয়েছে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতা। তার ধারাবাহিকতায় মহেশখালী উপজেলার সব কটি স্কুলকে দুটি বিভাগে ভাগ করে এই বিতর্ক প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে।

সোমবার (২৯ জুলাই) সকাল ১০টায় উপজেলা হল রুমে উপজেলা পর্যায়ে বড় মহেশখালী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কালারমারছড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, মহেশখালী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও মাতারবাড়ি আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঝে উপজেলা সেরা হওয়ার প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও সহকারী কমিশনার ভুমি অংগ্যাজাই মারমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিতর্ক প্রতিযোগিতায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা গোলাম মাসুদ কুতুবী, উপজেলা মাধ্যমিক একাডেমিক সুপার ভাইজার ফজলুল করিম, উপস্থাপনায় ছিলেন মহেশখালী কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক বাবু আশিষ চক্রবর্তি, বড় মহেশখালী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন কবির আজাদ, শিক্ষক সাহেদুল ইসলাম মুকুল, আব্দুস সালাম সোহান ও কালারমারছড়া হাই স্কুলের শিক্ষক রুহুল আমিন প্রমুখ।

বিতর্কের বিষয় ছিলো বাল্য বিবাহের অন্যতম কারণ দারিদ্রতা, এ বিষয় নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে অবস্থান নেয় ৪টি প্রতিষ্ঠান । র্দীঘ ২ ঘন্টা বিতর্কের পর বিচারকগণ উপজেলার নারী শিক্ষার অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বড় মহেশখালী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়কে চ্যাম্পিয়ান ও কালারমারছড়া হাই স্কুলকে রানারআপ ঘোষণা করেন। পরে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তোলে দেন অতিথিরা। আগামী ১ আগস্ট মহেশখালীর চ্যাম্পিয়ান স্কুলটি কক্সবাজার জেলা পর্যায়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে।

বড় মহেশখালী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পক্ষে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করেন ৯ম শ্রেণীর বিজ্ঞান শাখার ওয়াসিফা তাফহিম রাফি, বিজ্ঞান শাখার ১০ম শ্রেণীর তফুরা করিম জিতু, তাদের দলনেতা ১০ম শ্রেণীর বিজ্ঞান শাখার সাবিনা ইয়াসমিন। উপজেলার শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছে কালারমারছড়ার হাই স্কুলের ৯ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সানিয়া রাইসা।

বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বড় মহেশখালীর এক বক্তা বলেন , দারিদ্র্য ও নিরাপত্তাহীনতাই বাল্যবিবাহের অন্যতম কারণ’

বাংলাদেশের আইনে মেয়েদের বিয়ের বয়স নির্ধারণ করা আছে ১৮ বছর । এর কম বয়সী মেয়েদের বিয়ে হলে সেটি হবে ‘বাল্যবিবাহ’, যা একটি দণ্ডনীয় অপরাধ কিন্তু আইনের বিধিনিষেধ কাগজে-কলমে থাকলেও বাস্তবে এটি বন্ধ হচ্ছে না।

জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বাংলাদেশে এখনো ৬৬ শতাংশ মেয়ে বাল্যবিবাহের শিকার। বাল্যবিবাহের এক নম্বর কারণ দারিদ্র্য ও দুই নম্বর কারণ হচ্ছে অভিভাবকদের সচেতনতার অভাব।

এদিকে মহেশখালী উপজেলাতে মাধ্যমিক স্কুল পর্যায়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান হওয়ায় বড় মহেশখালী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, আলহাজ্ব আনোয়ার পাশা চৌধুরী। অপর দিকে কলেজ পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ান হয়েছে সরকারি বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজ।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 + six =

আরও পড়ুন