“জাতিগত বিদ্বেষ ছড়ানোর অভিযোগে দেশটির সেনাপ্রধান মিন অং হ্লিয়াংয়ের অ্যাকাউন্ট বাতিল করেছে টুইটার।”
রোহিঙ্গা গণহত্যার অভিযোগে

মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের অ্যাকাউন্ট বাতিল করলো টুইটার

 

মিয়ানমারের রাখাইনে বসবাসরত রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক গণহত্যা এবং জাতিগত বিদ্বেষ ছড়ানোর অভিযোগে দেশটির সেনাপ্রধান মিন অং হ্লিয়াংয়ের অ্যাকাউন্ট বাতিল করেছে টুইটার। গার্ডিয়ান, সাউথ চীনা মর্নিং পোস্ট

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি রোহিঙ্গাদের ‘বাঙ্গাল’ বলে উল্লেখ করতেন এবং ঘৃণাত্মক মন্তব্য করা সহ জাতিগত বিদ্বেষ ছড়াতেন। এই সপ্তাহে তার অ্যাকাউন্ট সরিয়ে নেয় টুইটার। এর আগে সামাজিক মাধ্যমে সহিংসতা ছড়ানোর দায়ে ২০১৮ সালের আগস্টে তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ডিলেট করা হয়েছিলো।

এর আগে বার্মিস রোহিঙ্গা অর্গানাইজেশন ব্রিটেনের সভাপতি তুন কিন গত সপ্তাহে সিলিকন ভ্যালিতে টুইটারের নির্বাহীদের সঙ্গে দেখা করেন এবং সেখানে মিন অংশ হ্লিয়াং এর অ্যাকাউন্টের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন করেন।

তুন কিন বলেন, রোহিঙ্গা গণহত্যার পেছনে মূল মাস্টারমাইন্ড ছিলেন এই মিন অং হ্লিয়াং। এখন ফেসবুকের সঙ্গে টুইটার তার অ্যাকাউন্ট বাতিল করেছে। সেখানে তিনি এতদিন মিথ্যে প্রপাগান্ডা ও ঘৃণা ছড়িয়েছেন। এটি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির জন্য এক বিশাল বিজয়।’

২০১৭ সালে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর হত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয়ে সাড়ে সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। জাতিসংঘ মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ এনে শীর্ষ ছয় জেনারেলকে আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের মুখোমুখি করার সুপারিশ করে।

 

সূত্র: আমাদের সময়.কম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four + 17 =

আরও পড়ুন