রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গৃহপালিত গরু চুরির অভিযোগ

fec-image

রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাশে স্থানীয় যারা বসবাসরত রয়েছে তাদের বাড়িতে রোহিঙ্গা চোরের দল প্রতিনিয়ত রাতের বেলায় হানা দিয়ে গৃহপালিত পশু চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠছে। কোরবানি উপলক্ষে বিক্রির জন্য পালিত গরু, মহিষ, মোরগ, ছাগল থেকে শুরু করে যা পাচ্ছে তা চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে তারা।

উপায় না দেখে পাহারা দিতে স্থানীয়রা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। বিশেষ করে যেসব গোয়ালঘরে পালিত কোরবানির পশু রয়েছে, রোহিঙ্গা চোরের দল সেখানেই হানা দিচ্ছে। তাই বাধ্য হয়ে স্থানীয় বৃদ্ধ-যুবক সবাই রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে গরু ছাগল।

জানা যায়, উখিয়া টেকনাফ ও ঘুমধুম এলাকায় মেঠো পথে ও বিভিন্ন রাস্তার মাথায় রাত জেগে পাহারা বসিয়ে চলছে পাড়ালিয়া যুবকরা। রোহিঙ্গা চোরের দল গরু, মহিষ, ছাগল, মুরগি, কবুতর ও ব্যবহার্য জিনিসপত্র চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে আশ্রয় ক্যাম্পে।

দিনের বেলায় খোঁজ-খবর নিয়ে রাতে সশস্ত্র অবস্থায় দল বেধে এসে গোয়ালঘর থেকে কোরবানি গরু নিয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা।

স্থানীয়রা বলেন, সরকারি-বেসরকারিভাবে যথেষ্ট ত্রাণ পাচ্ছে রোহিঙ্গারা। নিয়মিত ত্রাণ ছাড়াও বিভিন্ন এনজিও এবং আরাকান বিদ্রোহী গ্রুপের জঙ্গীরা গোপনে নগদ টাকাও দিচ্ছে রোহিঙ্গাদের। তারপরও তারা চুরি-ডাকাতি ও অসামাজিক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে। এক বছর ধরে যেসব গৃহস্থলিতে যত্নসহকারে কোরবানির গরু মোটা করেছে, সেসব গরু চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গারা।

স্থানীয়রা আরও বলেন, শুধু গৃহপালিত জন্তু নয়, বাইরে শুকাতে দেয়া কাপড়চোপড়ও চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে রোহিঙ্গা চোরের দল। রোহিঙ্গা চোরের দল গরু-মহিষ ও চোরাই পণ্য ক্যাম্পে নিয়েই ভাগবাটোয়ারা করে ফেলছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: মিয়ানমার, রাজাপালং, রোহিঙ্গা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

11 + fifteen =

আরও পড়ুন