adv 728

লামায় ব্যবসায়ী অপহরণ, ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি

লামা প্রতিনিধি:

বান্দরবানের লামা উপজেলার লামা ইউনিয়নের ঘিলা পাড়ায় পাহাড়ি সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা মহরম আলী (২৮) নামক এক ব্যবসায়ীকে অপহরণ করেছে। লামা উপজেলা সদর থেকে ২২ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত দুর্গম ঘিলা পাড়া থেকে তাকে অপহরণ করা হয়।

অপহৃতের স্ত্রী ছফুরা বেগম জানান, শুক্রবার (২১ ডিসেম্বর) দুপুরে মুক্তিপণ বাবদ ৫০ হাজার টাকা দাবি করে সন্ত্রাসীরা। ব্যবসায়ীক কাজে বৈল্ল্যারচর থেকে ৪দিন পূর্বে ঘিলা পাড়ায় যায় মহরম আলী। সে সদর ইউনিয়নের বৈল্ল্যারচর পাড়ার মৃত হাসান আলীর ছেলে। সর্বশেষ গত ১৯ ডিসেম্বর স্ত্রীর সাথে মোবাইল ফোনে তার কথা হয়। একই সময় ঘিলা পাড়া থেকে আরও দুইজন উপজাতিকে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। শুক্রবার দুপুরে তাদের ছেড়ে দেয়া হয় বলেও জানা গেছে।

অপহৃত মহরম আলীর স্ত্রী ছফুরা বেগম বলেন, আমার স্বামী ইউনিয়নের দুর্গম ঘিলা পাড়া, পোপা হেডম্যান পাড়া, দোছড়ি পাড়া ও বদলা পাড়া থেকে আদা, হলুদ, মরিচ, কলা ও বাঁশ ক্রয় করে বাজারে এনে বিক্রি করত। গত বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় তার সাথে আমার মোবাইলে কথা হয়েছিল। তারপর থেকে আর কোন যোগাযোগ নেই।

শুক্রবার দুপুরে একটি অজ্ঞাত নাম্বার থেকে আমার মুঠোফোনে কল করে মুক্তিপণ হিসেবে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে সন্ত্রাসীরা। সে ঘিলা পাড়ার কারবারীর ছেলে বাসু মণি ত্রিপুরার সাথে ব্যবসা করত। ঘিলা পাড়া থেকে তাকে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। আমার স্বামীকে উদ্ধারে প্রশাসনের সহায়তা কামনা করছি।

ঘিলা পাড়ার কয়েকজন জানান, বৃহস্পতিবার রাতে মহরম আলীর সাথে পাড়ার কারবারী সতিয়া ত্রিপুরা ছেলে বাসু মণি ত্রিপুরা সহ মোট ৩জনকে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। পরে ২জনকে ছেড়ে দেয়, কিন্তু বৈল্ল্যারচর এলাকার মহরম আলীকে এখনো ছাড়েনি।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান মিন্টু কুমার সেন বলেন, কয়েকদিন পর পর সন্ত্রাসীদের এই ধরনের অপহরণ ও হামলার কারণে জন মনে যথেষ্ট উৎকন্ঠার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা কামনা করেন। গত ১৭ ডিসেম্বর বরিশাল পাড়া ও ঠাকুরঝিরি থেকে দুইজনকে অপহরণ করে ছেড়ে দেয় সন্ত্রাসীরা।

লামা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ অপ্পেলা রাজু নাহা বলেন, ঘটনাস্থলটি উপজেলা সদর থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার পূর্ব-উত্তরে অবস্থিত। স্থানটি অনেক দুর্গম। আমরা এমন একটি কথা শুনেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 + 17 =

আরও পড়ুন