অচল কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

৫ দিনেও কক্সবাজার সদর হাসপাতালের অপ্রীতিকর ঘটনার সমাধান হয়নি। সমাধান না হওয়ায় চিকিৎসক-নার্স ও কর্মচারীরা তাদের অবস্থানে অনড় রয়েছে। ফলে রবিবার (৭ এপ্রিল) হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে।

 

এ নিয়ে টানা ৫ দিন চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে জেলা একমাত্র পূর্ণাঙ্গ এই সরকারি হাসপাতালের। চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকায় রোগীদের আর্তনাদে পুরো হাসপাতাল জুড়ে এক ভীতিকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে। তবে কর্তৃপক্ষের দাবির হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের বর্হি:বিভাগ, জরুরী এবং সব ওয়ার্ডের চিকিৎসা সেবা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ রয়েছে। কোথাও কোনো চিকিৎসক-নার্স ও কর্মচারীর দেখা মিলেনি। চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকলেও এখনো হাসপাতালে বেডে পড়ে থেকে কাতরাচ্ছে বেশ কিছু রোগী। চিকিৎসা না পেয়ে রোগী ও স্বজনেরা কান্না করছে। অনেক রোগীর অবস্থা অত্যন্ত সংকটাপন্ন হয়েছে। যারা হাসপাতালে পড়ে রয়েছে সবাই গরীব রোগী। অর্থাভাবে প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে পারছে না তারা। তাই বাধ্য চিকিৎসার আশায় পড়ে আছেন তারা।

অন্যদিকে প্রতি মুহুর্তে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আসছে শত শত রোগী। জেলার দূর-দূরান্ত থেকে আসছে রোগীরা। চিকিৎসা না পেয়ে তারা বাধ্য হয়ে ফিরে যাচ্ছেন। হাসপাতালের শীর্ষ কর্মকর্তারা অফিস করছেন। কয়েকজন ইন্টার্নি চিকিৎসক দেখা গেলেও তারা কর্মবিরতিতে রয়েছেন। শনিবার রাতেও বিষয়টি একটি বৈঠক হলেও কোনো সমাধান হয়নি। তবে এ রিপোর্ট লেখাকালিন কক্সবাজার পৌর মেয়র বিএমও ও চিকিৎসকদের সাথে দফায় দফায় মিটিং করে সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, ৪ এপ্রিল ভুল চিকিৎসায় শহরের সমিতি পাড়ার আনোয়ার হোসেন নামে এক মৎস ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয় বলে দাবি তার স্বজনদের। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মৃতের স্বজনেরা দুইজন ইন্টার্ন চিকিৎসককে মারধর করে। এছাড়া নার্স ও কর্মচারীদের লাঞ্ছিত করেন। এই ঘটনার জের ধরে সাথে সাথেই চিকিৎসা সেবা বন্ধ করে দেয় হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্স ও কর্মচারীরা। এতে বিপাকে পড়ে যায় চিকিৎসাধীন রোগীরা। স্বচ্ছল রোগীরা প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি হলেও গরীব রোগীরা চিকিৎসা না পেয়ে চরম বেকায়দায় পড়ে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 + 4 =

আরও পড়ুন