আজ থেকে শুরু বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর আনুষ্ঠানিকতা

fec-image

আজ ১৭ মার্চ, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন।  ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ রাত ৮টায় টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।  ২০২০ সালে এসে আজ সারাদেশের সাথে পার্বত্য চট্টগ্রামেও পালিত হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী।  মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সন্ধ্যা ৮টায় শুরু হবে জাতীয় পর্যায়ে মুজিব শতবর্ষের আনুষ্ঠানিকতা। আতশবাজির মধ্য দিয়ে শুরু হয়ে উদ্বোধনী আনুষ্ঠানিকতা শেষ হবে পিক্সেল ম্যাপিংয়ের মধ্য দিয়ে।

সোমবার (১৬ মার্চ) আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী।

কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, রাত আটটায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আতশবাজির মধ্য দিয়ে মুজিববর্ষের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে।  এরপর দুই ঘণ্টাব্যাপী ধারণ করা একটি অনুষ্ঠান বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ সব বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে সম্প্রচারিত হবে। রাত ১০টায় জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় পিক্সেল ম্যাপিং প্রদর্শনের মাধ্যমে মুজিববর্ষের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষ হবে।

তিনি বলেন, আমরা দেশের তৃণমূল পর্যায় থেকে বিশ্বের সব প্রান্তে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানমালা আয়োজন করেছিলাম। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে অনুষ্ঠান শেষ মুহূর্তে স্থগিত করতে হয়। সেজন্যই আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় ধারণ করা অনুষ্ঠান প্রচার করবো।

কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আতশবাজি সরাসরি প্রদর্শনের পর আমরা ধারণ করা অনুষ্ঠানে যাবো।  এর শুরু হবে শিশুকণ্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে।  এরপর প্রচারিত হবে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের বাণী। এরপর জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন বঙ্গবন্ধুকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সম্প্রচারিত হবে মুজিববর্ষের থিম সং।  এতে দেশের প্রথিতযশা শিল্পীদের সঙ্গে কণ্ঠ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর আরেক কন্যা শেখ রেহানা।  এ অনুষ্ঠানে পিতাকে নিয়ে শেখ রেহানার লেখা কবিতা আবৃত্তি করবেন শেখ হাসিনা

অনুষ্ঠানে শিল্পকলা একাডেমির ব্যবস্থাপনায় ৪০ মিনিটের একটি সাংস্কৃতিক পরিবেশনা রয়েছে।  দেশের শিল্পীদের পরিবেশনায় থাকছে যন্ত্রসংগীত। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নৃত্য পরিচালক আকরাম খানের পরিচালনায় থাকছে থিয়েট্রিক্যাল পারফরম্যান্স। শেষে থাকবে পিক্সেল ম্যাপিং।  আতশবাজির মতো এটিও সরাসরি অনুষ্ঠিত হবে।’

তিনি বলেন, অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে বিশ্বনেতা ও সংস্থার প্রধানদের বাণী প্রচারিত হবে। তাদের মধ্যে রয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, নেপালের বর্তমান রাষ্ট্রপতি বিদ্যা ভল্ডারী, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং, জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, ওআইসি মহাসচিব ইউসেফ আল-ওথাইমিন প্রমুখ।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট, স্মারক নোট ও স্মরণিকা প্রকাশ করা হবে বলেও জানান তিনি।  কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী বলেন, মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটায় গণভবনে এগুলো উন্মোচন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া অন্যান্য যেসব আয়োজন ছিল সেগুলো করোনা ভাইরাসের গতি-প্রকৃতির ওপর নির্ভর করে আয়োজন করা হবে।  তার আগ পর্যন্ত অধিক জনসমাগমের কোনও আয়োজন থাকছে না।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা প্রমুখ।

আতশবাজি-ফানুস উড়াবে  আওয়ামী লীগ:

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মক্ষণ উদযাপনে সারাদেশে একযোগে আতশবাজি প্রদর্শনী ও ফানুস ওড়াবে আওয়ামী লীগ

সোমবার ঢাকার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, “বিস্তারিত কর্মসূচির মধ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মক্ষণ উপলক্ষে মঙ্গলবার রাত ৮টায় সারাদেশে একযোগে আতশবাজি প্রদর্শনী ও ফানুস উত্তোলন করা হবে।”

ধানমণ্ডির ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে, বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, ধানমণ্ডি রবীন্দ্র সরোবর, হাতিরঝিল, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, টিএসসি ও জাতীয় সংসদ ভবন এলাকায় হবে আতশবাজি প্রদর্শনী।

এছাড়াও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ রাজধানীর প্রধান প্রধান সড়কে আলোকসজ্জা করা হবে।

১৭ মার্চ রাত ৮টার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী জাতীয় ও বাস্তবায়ন কমিটির আয়োজনে একযোগে সব গণমাধ্যমে প্রচারিত অনুষ্ঠান ঘরে বসে দেখার অনুরোধ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “বাবা বাঙালি জাতিকে দিয়েছেন স্বাধীনতা, আর মেয়ে (শেখ হাসিনা) দিয়েছেন মুক্তি।

“জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী মুজিববর্ষ বাঙালি জাতির ইতিহাসের এক অনন্য মাইলফলক স্পর্শকারী ও অভাবনীয় ঘটনা। বাঙালির আদর্শ পুরুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বর্তমান প্রজন্মের মন-মননে, চিন্তা-চেতনে, আদর্শ-অনুপ্রেরণে চেতনায়-জাগরণে প্রদীপ্ত শিখারূপে প্রবাহমান।”

বাঙালির স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উদযাপনে আগামী ১৭ মার্চ থেকে এক বছর ‘মুজিববর্ষ’ঘোষণা করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতা কাদের বলেন,  “ক্ষণজন্মা এই মহামানবের স্বপ্নের উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা বিনির্মাণে তারই নির্দেশিত পথ ধরেই এগিয়ে যাবার দৃপ্ত শপথে বাঙালি জাতি আজ বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্যকন্যা, বাঙালির আশা-আকাঙ্ক্ষা প্রত্যয় ও প্রত্যাশার বিশ্বস্ত ঠিকানা দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।”

আওয়ামী লীগের কর্মসূচি:

সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু ভবন, আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সারা দেশের সব আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। সকাল ৭টায় বঙ্গবন্ধু ভবনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করবে আওয়ামী লীগ

আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সবাইকে নিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও দোয়া মাহফিল করা হবে।

এছাড়া দেশের সব ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা করা হবে। এতিম ও দুঃস্থদের মাঝে খাবার ও ত্রাণ বিতরণ করা হবে।

দুপুরে ঢাকায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিখা চিরন্তনে অসহায় দুঃস্থদের মাঝে খাবার, বস্ত্র ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধের সামগ্রী বিতরণ করবে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও দুর্যোগ উপ কমিটি।

দুপুর ১টায় বনানীর কড়াইল বস্তিতে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ এবং বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এলাকায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এতিম ও দুস্থদের মাঝে খাবার ও বস্ত্র বিতরণ করবে।

মসজিদ, মন্দির, প্যাগোডা, গির্জাসহ সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দেশব্যাপী বিশেষ প্রার্থনা কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাদ জোহর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদসহ দেশের সকল মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল।

সকাল ৮টায় তেজগাঁও গির্জায়, সকাল ৯টায় মিরপুরের সেনপাড়ায় ব্যাপ্টিস্ট চার্চে  খ্রিস্টান সম্প্রদায়, সকাল ১০টায় রাজধানীর মেরুল বাড্ডাতে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে বৌদ্ধ সম্প্রদায় এবং সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে হিন্দু সম্প্রদায় প্রার্থনা সভা আয়োজন করেছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen + thirteen =

আরও পড়ুন