আরসার আক্রমণে মিয়ানমার পুলিশের তিন অফিসার আহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, পার্বত্যনিউজ:

আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি(আরসা) ছোঁড়া আর্টিলারি গোলার আঘাতে তিন পুলিশ অফিসার আহত হয়েছে বলে মিয়ানমার সরকারের জেনারেল এমিনিস্ট্রেশন ডিপার্টমেন্ট দাবী করেছে। বৃহস্পতিবার(২৪ জানুয়ারি) সকাল ৭ টায় রাখাইন স্টেটের মংডু টাউনশিপের কাছে দুই ঘণ্টা ব্যাপী এক বন্দুক যুদ্ধে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে বার্মিজ অনলাইন ইরাবতি। কয়েক সপ্তাহের মধ্যে আরসার এটি দ্বিতীয় আক্রমণ বলে দাবী করা হয়েছে।

উত্তর মংডুতে মিয়ানমার সরকারের উ হ্লা তুন তিন নামের একজন মুখপাত্র ইরাবতি অনলাইনকে জানান, আরসার ৪০ জনের একটি সশস্ত্র দল বাংলাদেশ সীমান্তের ৪১ নং পিলারের নিকট দিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে সীমান্ত থেকে ২০০ মিটার দুরের একটি পুলিশ পোস্ট আর্টিলারি গোলা বর্ষণ করে দখলের চেষ্টা করে। কিন্তু কাছের পোস্ট থেকে অতিরিক্ত সৈন্য যোগদান করে ২ ঘণ্টা যুদ্ধের পর আরসার আক্রমণ রুখে দেয় এবং পোস্টটি দখলে রাখতে সমর্থ হয়। তবে এর মধ্যেই আরসার পোস্টটির বেশ কিছু কাঠামো ধংস করতে সক্ষম হয়।

এদিকে বাংলাদেশ সব সময়ই বলে আসছে, সে দেশের মাটিতে আরসা বা প্রতিবেশী কোনো ধরণের জঙ্গী গোষ্ঠীর আশ্রয় নেয়ার সুযোগ নেই। বর্তমান বাংলাদেশ সরকার সব ধরণের জঙ্গী তৎপরতার ব্যাপারে অত্যন্ত কঠোর অবস্থান নিয়েছে। কাজেই মিয়ানমারের ‘বাংলাদেশ সীমান্ত পার হয়ে আক্রমণের’ অভিযোগরে বাস্তবতা থাকতে পারে না। যদিও বাংলাদেশ সরকার অফিসিয়ালি এ ব্যাপারে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি।

উ হ্লা তুন তিন আরো বলেন, গত ১৬ জানুয়ারি মংডুর ওয়াট কিন গ্রামে আরসা সম্প্রতিকালে তাদের প্রথম আক্রমণ চালায়। মিয়ানমার ধারণা করেছিল, আরাকান আর্মি এই আক্রমণ করেছে। কিন্তু পরে তারা নিশ্চিত হয়েছে, আরসা এই আক্রমণে জড়িত ছিলো। এ আক্রমণে ৬ পুলিশ আহত হয়েছিল। তবে আরসার পক্ষ থেকে এই আক্রমণগুলো বা অভিযোগ সম্পর্কে এখনো কোনো জবাব দেয়া হয়নি।

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, মিয়ানমার সরকার আরাকান আর্মির আক্রমণ ঠেকাতে ব্যর্থ হয়ে এবং রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিদেশীদের সহায়তা ও সহানুভুতি পাওয়ার জন্য আরাকান আর্মির হামলাগুলোকে আরসার হামলা বলে চালিয়ে দিচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five − 1 =

আরও পড়ুন