একই পরিবারের ১১ জনসহ আক্রান্ত ৪০ জন

আলীকদমে বেড়েছে ডেঙ্গুর প্রকোপ, জনমনে আতঙ্ক

fec-image

বান্দরবানের আলীকদমে হঠাৎ করেই বেড়েছে ডেঙ্গুর প্রকোপ। এই উপজেলায় চলতি মাসে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ জন ছড়িয়েছে। সদর উপজেলার খুইল্যা মিয়াপাড়া, বাজার মার্মা পাড়া, নয়াপাড়াসহ কয়েকটি পাড়ায় এই রোগের প্রকোপ বেশি দেখা দিয়েছে। এই কারণে এলাকাবাসীর মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। রোগীরা ডেঙ্গু আক্রান্ত নিশ্চিত হওয়ার পর চিকিৎসার জন্য চলে যাচ্ছেন চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন প্রাইভেট হাসপাতালে।

উপজেলা সদরের খুইল্যা মিয়া পাড়ার সমাজপতি ফরিদুল আলম জানান, গত মাসে খুইল্যামিয়া পাড়া সংলগ্ন মার্মা পাড়ার বাসিন্দা উথাইপ্রু মার্মা ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হন। তিনি চট্টগ্রাম গিয়ে চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ্য হয়ে আসার পর দুই পাড়ার লোকজনের মধ্যে ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ দেখা দেয়। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বাজারের প্যাথলজি থেকে রক্ত পরীক্ষা করে একের পর এক ডেঙ্গু রোগী সনাক্ত হতে থাকে। বর্তমানে আক্রান্তদের অনেকের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় চট্রগ্রামের ভালো ভালো হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

তিনি আরো বলেন, এ পর্যন্ত খুইল্যা মিয়া পাড়ায় একই পরিবারের হাজী ইসহাক আহমদ, নাজমুন্নাহার, মালেকা আক্তার, রুকছি মনি, সুমাইয়া জান্নাত, সাহিদা জান্নাত, আসরাফুল ইসলাম রাহাত, নুসরাতুল জান্নাত, তাহমিত, আসিফা মনি, সাদিয়া মনিসহ ২৬ জন ও বাজার মার্মা পাড়ায় ৫-৬ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে।

এ সময় তিনি বলেন, আমরা এই বিষয়ে আলীকদম জোন বরাবরে দরখাস্ত করেছি। গত শুক্রবার ইউএনও স্যার ও স্বাস্থ্য বিভাগের ডাক্তার এসেছিল পরিদর্শনে। তবে ডেঙ্গু সংক্রান্ত বিষয়ে এখনো পর্যন্ত স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে আমরা কোনো সহায়তা পাইনি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডাঃ শহিদুর রহমান জানান, খুইল্যা মিয়া পাড়ায় একটি মেডিকেল টীম ভিজিট করেছেন। আক্রান্ত পাড়ায় স্প্রে করা প্রয়োজন। তিনি জনান, হাসপাতালে স্প্রে মেশিন থাকলেও ওষুধ নেই।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সায়েদ ইকবাল বলেন, এ পর্যন্ত কতজন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে তার সঠিক সরকারি পরিসংখ্যান উপজেলা প্রশাসনে এখনো পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ডেঙ্গু
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × 4 =

আরও পড়ুন