ইউজিসির নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সিবিআইইউতে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি

fec-image

রাষ্ট্রপতি নিয়োগকৃত উপচার্য ও কোষাধ্যক্ষ, বিভাগীয় প্রধান পদে অধ্যাপক এবং অস্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ না থাকাসহ ১৬টি সমস্যার কথা উল্লেখ করে এসব সমস্যা সমাধানের জন্য সময় বেধে দিয়ে আগামী ১ বছরের জন্য কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (সিবিআইইউ)কে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। কিন্তু ইউজিসি’র পরিচালক (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা) ওমর ফারুক স্বাক্ষরিত ১০ সেপ্টেম্বরের সেই নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এখনো সিবিআইইউ কর্তৃপক্ষ নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার দুই দিন কক্সবাজার শহরের কলাতলীর মোড়ের ডায়নামিক কিংডম ভবণের দ্বিতীয় তলায় গিয়ে দেখা যায়, সিবিআইইউতে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম চলছে। এই দুইদিনে প্রায়ই ৬০ জন শিক্ষার্থী বিভিন্ন অনুষদে ভর্তি হয়েছে। এদের অনেকের ভর্তি তারিখ নিষেধজ্ঞার আগে দেখানো হচ্ছে। অনেকের বেলায় ভর্তি তারিখ খালি রাখা হয়েছে। এছাড়া এডমিশন ডেস্ক অফিসার কামরুল হাসান, রেজিষ্ট্রার মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ ও একাউন্ট সেকশনে আবদুল খালেক ও ছোটন নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি কাজ সম্পন্ন করছিলেন। এছাড়া ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের পিআরও কুতুব উদ্দিন ভর্তি হতে আসা শিক্ষার্থীদর বিভিন্ন বিষয়ে দিক নির্দেশনা দেয়। ওই সময় এক শিক্ষার্থী সিবিআইইউতে নতুন ভর্তি চলছে কিনা আর চললে কি কি ডকুমেন্ট জানতে চাইলে এডমিশন ডেস্ক অফিসার কামরুল হাসান ওই শিক্ষার্থীকে জানায় নতুন ভর্তি চলছে।

এবিষয়ে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের লেদার মোহাম্মদ হোসেন বলেন, আমি বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) নতুন শিক্ষার্থী হিসেবে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির আইন অনুষদে ভর্তি হয়েছি।

তবে এবিষয়ে সিবিআইইউ দখলে থাকা সিন্ডিকেট কমিশন (বোর্ড অব ট্রাস্ট্রি) এর সেক্রেটারী অধ্যাপক একে এম গিয়াস উদ্দিন বলেন, নতুন শিক্ষার্থী ভর্তির বিষয়টি আমার জানা নেই। এছাড়া এখনো ভর্তি বন্ধে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে কোন নিষেধজ্ঞা দেয়া হয়নি। ইউজিসি বিশ্ববিদ্যালয়টির ১৬টি সমস্যা চিহ্নিত করে একবছরের জন্য নতুন শিক্ষার্থী বন্ধে সুপারিশ করেছি বলে আমি জানি।

তিনি আরো বলেন আপনি যাদেরকে ভর্তি হতে দেখেছেন তারা নতুন শিক্ষার্থী নয়। তারা বিভিন্ন সেমিস্টারের ফি জমা দিচ্ছিল।

এদিকে ইউজিসি’র পরিচালক (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা) ওমর ফারুখ বলেন, সিবিআইইউ নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি করছে কিনা আমাদের জানা নেই। তবে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ নেই। রাষ্ট্রপতি নিয়োগকৃত উপচার্য নেই, কোষাধ্যক্ষ নেই, কোন অধ্যাপক নেই, নিজস্ব ক্যাম্পাস নেই, ব্যাংক পুর্ণভরেন নেই । এছাড়া আরো কিছু সমস্যা রয়েছে। এজন্য ওই বিশ্ববিদ্যালয়কে আগামী ১ বছর পর্যন্ত নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি সম্পূর্ণরুপে বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × one =

আরও পড়ুন