ইরানের প্রেসিডেন্ট পদে লড়বেন যে ছয়জন

fec-image

রানে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ২৮ জুন অনুষ্ঠিত হবে৷ সেখানে প্রার্থী হতে ৮০ জন আবেদন করেছিলেন৷ এর মধ্যে ছয়জনের আবেদন অনুমোদন করেছে গার্ডিয়ান কাউন্সিল। অনুমোদন পাওয়া ছয় প্রার্থীর মধ্যে পাঁচজন কট্টরপন্থি বলে বিবেচিত। অন্যজন সংস্কারপন্থি৷ এই ছয়জনের মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ধরা হচ্ছে মোহাম্মদ বাঘার কালিবাফ৷

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় সাবেক প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির মৃত্যুর কারণে দেশটিতে নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে৷

এবার ৮০ জন আবেদনকারীর মধ্যে চার নারীও ছিলেন৷ তবে, কারও আবেদন অনুমোদন করা হয়নি৷ ১৯৭৯ সালের ইসলামি বিদ্রোহের পর থেকে এমনটা হয়ে আসছে৷

সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমেদিনেজাদের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে৷ ২০১৭ ও ২০২১ সালেও প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন তিনি৷ ২০০৫ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট ছিলেন আহমেদিনেজাদ৷ সংসদের সাবেক স্পিকার মধ্যপন্থি নেতা আলি লারিজানি ও রেভ্যুলুশনারি গার্ডসের সাবেক কমান্ডার ভাহিদ হাঘানিয়ানের প্রার্থিতাও অনুমোদন পায়নি৷

অনুমোদন পাওয়া প্রার্থদের মধ্যে সংস্কারপন্থি একমাত্র প্রার্থী মাসুদ পেজেশকিয়ান দেশটির তাবরিজ আসনের সংসদ সদস্য৷ বাকি চার প্রার্থী হলেন-সাবেক প্রধান পরমাণু আলোচক সাইদ জলিল, ফাইন্ডেশন অব মার্টায়ার্স অ্যান্ড ভেটেরানস অ্যাফেয়ার্সের অতিরক্ষণশীল চেয়ারম্যান আমির-হোসেইন ঘাজিজাদেহ হাশেমি, সাবেক স্বরাষ্ট্র ও বিচারমন্ত্রী ইসলামি পণ্ডিত মোস্তফা পুরমোহাম্মদি ও তেহরানের বর্তমান মেয়র আলিরেজা জাকানি৷

গার্ডিয়ান কাউন্সিল কী

১২ জন ইসলামি পণ্ডিত ও বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত গার্ডিয়ান কাউন্সিলের একটি কাজ নির্বাচনে অংশগ্রহণে ইচ্ছুক প্রার্থীদের যোগ্যতা যাচাই করা৷

গার্ডিয়ান কাউন্সিলের ১২ জনের মধ্যে ছয়জনকে নির্বাচন করে সংসদ৷ বাকি ছয়জনকে নিয়োগ দেন দেশটির শীর্ষনেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি৷ ফলে ইরানে চালু থাকা ব্যবস্থার প্রতি সমর্থন প্রকাশ করা প্রার্থীদের মধ্য থেকেই একজনকে বেছে নিতে হয় ভোটারদের৷

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: ইরান, প্রেসিডেন্ট নির্বাচন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন