উখিয়ায় ৬ গ্রামের ১৫হাজার মানুষের দুঃখ ১’শ মিটার সড়ক

fec-image

উখিয়ার রাজাপালং ইউনিয়নের পূর্বাঞ্চলিয় ৬ গ্রামের ১৫ হাজার মানুষের একমাত্র দুঃখ হচ্ছে ১‘শ মিটার সড়ক।

উখিয়া-ডাকবাংলা-ডিগলিয়া-ডেইলপাড়া সড়কের শেষাংশের ডেইলপাড়া জামে মসজিদ সংলগ্ন সড়কের ১‘শ মিটার সড়কের অংশটি দীর্ঘ ১০ বছরেও সংস্কার না হওয়ায় পথচারী থেকে শুরু করে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীদের দ্বিগুণ ভাড়া গুণতে হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন এলাকাবাসী।

সরেজমিন উখিয়ার পূর্বাঞ্চলিয় এলাকা খ্যাত পশ্চিম ডিগলিয়া, পূর্ব ডিগলিয়া, করইবনিয়া, ডেইলপাড়া, তুলাতলী এলাকা ঘুরে দেখা যায় ওই এলাকার প্রায় ১৫ হাজার মানুষের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে উখিয়া ডাকবাংলা-ডিগলিয়া-ডেইলপাড়া সড়ক।

এ সড়ক দিয়ে পূর্বাঞ্চলিয় এলাকায় উৎপাদিত সকল কৃষিপণ্য বাজারজাত করার জন্য উখিয়া দারোগা বাজারে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু মাত্র ১‘শ মিটার সড়ক সংস্কার না হওয়ার কারণে ভাড়া গুনতে হয় দ্বিগুণ।

স্থানীয় কৃষক আলী হোসেন জানান, ডাকবাংলা-ডিগলিয়া-ডেইলপাড়া সড়কের ১‘শ মিটার অংশে সংস্কার কাজ না হওয়ায় ১০ বছর ধরে ১০ টাকা ভাড়ার স্থলে ২০ টাকা অতিরিক্ত ভাড়া গুণতে হচ্ছে।

অনেক জনপ্রতিনিধি একাধিকবার কথা দিয়েও কথা রাখেনি। যে কারণে এক দশক ধরে এভাবে বেহাল অবস্থায় রয়েছে সড়কের এই অংশটি। যার ফলে এই দীর্ঘ সময় ধরে ১৫ হাজার মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

নুরুল ইসলাম নামের এক কলেজ পড়ুয়া ছাত্র দুঃখের সাথে বলেন, পশ্চিম ডিগলিয়া চৌরাস্তার মাথা হতে ডেইল পাড়া নতুন জামে মসজিদ পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার সড়ক কার্পেটিং এর জন্য সরকার বরাদ্দ দিলেও দেড় কিলোমিটার কাজ শেষ করে ঠিকাদার উধাও হয়ে যায়।

যার কারণে কুড়াকুড়ি করে ফেলে রাখা বাকী ১ কিলোমিটার সড়কের বিভিন্নাংশে পানি জমে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।

বিশেষ করে ডেইল পাড়া নতুন জামে মসজিদ সংলগ্ন ১‘শ মিটার সড়কের অংশে বৃষ্টির পানি জমে পুকুরে পরিনত হয়েছে। এ সড়ক দিয়ে বর্তমানে যাতায়ত করা কষ্ট সাধ্যকর হয়ে পড়েছে। এছাড়াও ১০ টাকার স্থলে ২০ টাকা ভাড়া দিতে হচ্ছে।

রাজাপালং ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মীর সাহেদুল ইসলাম চৌধুরী রোমান বলেন, ডেইল পাড়া নতুন জামে মসজিদ সংলগ্ন সড়কের অংশটি ৪নং ওয়ার্ড ও ৭নং ওয়ার্ডের মাঝামাঝি স্থানে হওয়ায় সংস্কার কাজে একটু বিলম্ব হচ্ছে। এরপরও আমি সড়ক সংস্কারের সময় উক্ত স্থানে পানি চলাচলের জন্য দুটি কালভার্ট বসানোর প্রস্তাব দিয়ে ছিলাম।

কিন্তু পরবর্তিতে ঠিকাদার উধাও হয়ে যাওয়ায় তা আর হয়নি। ফলে ওই এলাকার মানুষের যাতায়তের ক্ষেত্রে সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে উখিয়া উপজেলা প্রকৌশলী রবিউল ইসলামের সাথে কথা বলে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, পশ্চিম ডিগলিয়া চৌরাস্তা থেকে ডেইল পাড়া জামে মসজিদ পর্যন্ত সড়কের কার্পেটিং কাজের বাকি অংশটি আগামী দেড়/দুই মাসের মধ্যে শেষ করা হবে। তখন আর সড়কের কোন সমস্যা থাকবে বলেও জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: উখিয়া, জনপ্রতিনিধি, প্রকৌশলী
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 4 =

আরও পড়ুন