এডিস মশা কখন কামড়ায়, সতর্ক থাকবেন যেভাবে

fec-image

ডেঙ্গুরোগের বাহক এডিস মশা। এ মশা কখন কামড়ায় এ নিয়ে অনেকেরই নানা মত আছে। তবে এডিস মশা সাধারণত দিনের বেলাতেই কামড়ে থাকে। তাই বলে এমন না যে, রাতে কামড়া না! এ মশা কখন সক্রিয় থাকে তা নিয়ে প্রাণিবিজ্ঞানী ও কীটতত্ত্ববিদদের মধ্যে সামান্য মত-পার্থক্য আছে।

সবচেয়ে প্রচলিত তথ্য হচ্ছে, দিনের বেলায় এডিস মশা কামড়ায়। ভোর বা সূর্য ওঠার ৩-৪ ঘণ্টা পর এবং বিকাল থেকে সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত এ মশা সক্রিয় থাকে।

প্রাণিবিজ্ঞানদেন সাম্প্রতিক পর্যবেক্ষণ অনুসারে, শুধু দিনের বেলাতেই নয়; এডিস মশা সক্রিয় থাকে উজ্জ্বল আলোতে। তাই ঘর আলোকিত থাকলে রাতেও কামড়াতে পারে এডিস মশা।

এডিস মশা ভরদুপুরের চেয়ে আলো-আঁধারি পছন্দ করে বেশি। আর তাই ভোর বা সূর্যোদয়ের সময় এবং গোধূলি বা সূর্যাস্তের সময়টা এসব মশার ক্ষেত্রে কামড়ানোর জন্য পছন্দসই সময়। তবে রাতের বেলায়ও কৃত্রিম আলো-আঁধারিতে এডিস মশা কামড়াতে পারে।

এডিস মশা স্বচ্ছ পরিষ্কার পানিতে ডিম পাড়ে। তাই ডেঙ্গু প্রতিরোধে এডিস মশার ডিম পাড়ার উপযোগী স্থানগুলোকে পরিষ্কার রাখতে হবে। এ ছাড়াও মশক নিধনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

এ সময় ডেঙ্গুজ্বর প্রতিরোধ করতে হলে এডিস মশার বিস্তার রোধ করতে হবে। এছাড়া এই মশা যেন কামড়াতে না পারে সে ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।

এডিস মশা চেনার উপায়

এই মশা অন্য মশাদের চেয়ে কালো ধরনের হয়ে থাকে। এর পায়ে এবং পাশে সাদা ডোরাকাটা থাকে। এডিস মশার মাথার পেছনে ওপরের দিকে কাস্তে ধরনের সাদা দাগ থাকে। বাকি মশাদের মাঝ বরাবর সাদা দাগ থাকে। এই দুটো দেখেই চিহ্নিত করা যায় এডিস মশাকে।

যেভাবে সতর্ক থাকবেন

* দিনের বেলা পায়ে মোজা ব্যবহার করতে পারেন।

* ফুল হাতার জামা পরুন।

* শিশুদের হাফপ্যান্টের বদলে ফুলপ্যান্ট বা পায়জামা পরাতে হবে।

* দিনে ও রাতে ঘুমানোর সময় মশারি ব্যবহার করতে হবে।

* মশা যেন না কামড়াতে পারে এজন্য মশাবিরোধী বিভিন্ন ক্রিম বা তেল শরীরের খোলা স্থানে ব্যবহার করুন।

* দরজা-জানালায় নেট লাগাতে হবে।

* মশা তাড়াতে স্প্রে, লোশন, ক্রিম, কয়েল, ম্যাট ব্যবহার করতে পারেন।

* ফুলদানি, অব্যবহৃত কৌটা, বাড়িঘরের আশপাশে যে কোনে পাত্রে জমে থাকা পানি পরিষ্কার করুন।

* ঘরের বাথরুমে কোথাও পানি জমাবেন না।

* বাড়ির ছাদে বাগানের টবে বা পাত্রে যেন পানি জমে না থাকে। প্রয়োজনে প্রতিদিন পানি বদলে ফেলুন।

* বাড়ির আশপাশের ঝোপঝাড়, জঙ্গল, জলাশয় ইত্যাদি পরিষ্কার রাখুন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen + six =

আরও পড়ুন