‘কক্সবাজারের অর্থনৈতিক উন্নয়নে চেম্বারের সহযোগিতা অপরিহার্য‘

fec-image

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বলেছেন, জেলার অর্থনৈতিক উন্নয়নে চেম্বারের সহযোগিতা অপরিহার্য। প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারকে ঘিরে যে মহাপরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন তা ইতোমধ্যে দৃশ্যমান হয়েছে। আরো অনেক কর্মযজ্ঞ চলমান। এসব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সুষ্ঠু বাস্তবায়নে চেম্বারসহ স্থানীয় ব্যবসায়ীদের আন্তরিক সহযোগিতা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, করোনাকালে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের জন্য প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত করোনা প্যাকেজের সুফল যাতে তারা পায়, তার জন্য চেম্বারের ভূমিকা খুব প্রশংসনীয়।

শুক্রবার (১২ মার্চ) বিকালে কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) পরবর্তী নৈশভোজ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্যে ডিসি মো. মামুনুর রশীদ এসব কথা বলেন।

জাতীয় সংগীত পরিবেশন এবং করোনাকালে প্রয়াত চেম্বার সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে সভা শুরু হয়।

সভাপতি আবু মোরশেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে বার্ষিক সাধারণ সভায় প্রতিষ্ঠানের বিগত অর্থ বছরের আয়-ব্যয়ের হিসাব উপস্থাপনের পাশাপাশি ২০২১-২২ অর্থ বছরের বাজেট এবং আগামী কর্মপরিকল্পনা উপস্থিত সদস্যদের মতামতের জন্য পেশ করা হয়।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে চেম্বার সভাপতি বলেন, মহেশখালী, মাতারবাড়ি, সাবরাংকে ঘিরে সরকার যে অর্থনৈতিক কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে তা স্থানীয় জনগণের ত্যাগ এবং সহযোগিতা অনস্বীকার্য।

সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, এসব কর্মকাণ্ডে যাতে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও জনগণ অংশ গ্রহণ করতে পারে সে জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা সময়ের দাবি। পাশাপাশি চাহিদা অনুযায়ী স্থানীয় দক্ষ মানব সম্পদ সৃষ্টির আহবান জানান চেম্বার সভাপতি।

গভীর সমুদ্র বন্দরে সিএন্ডএফ, স্টিবিউটরিং এবং বাথিং কার্যক্রমে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের অংশ গ্রহণের লক্ষ্যে পৃথক প্রজ্ঞাপন জারির দাবি জানান আবু মোরশেদ চৌধুরী।

সভায় বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সহসভাপতি সাবেদুর রহমান, সিনিয়র ডাইরেক্টর আবদুল খালেক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাহ আলম, ঠিকাদার মনজুর আলম সিকদার, চেম্বারের সদস্য উদয় শংকর পাল মিটু, পরিচালক মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম হেলালি, ছৈয়দ মোহাম্মদ আলী, মো. ইমদাদুল হক, সাইফুল হক, মো. নুরুজ্জামান, এইচএম নুরুল আলম, আবেদ আহসান সাগর, শিবলুল করিম, আজমল হুদা, শামসুল আলম আজাদ, আবু হানিফ, মেসবা উল্লাহ, এম রেজাউল করিম রেজা, এআরএম শহিদুল ইসলাম। এছাড়া চেম্বারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বিগত অর্থ বছর ২০১৯-২০২০ এর আয়-ব্যয়ের হিসাব উপস্থাপনসহ আগামী অর্থবছরের খসড়া বাজেট এবং গঠনতন্ত্রের সংশোধনী নিয়ে বিস্তারিত মত বিনিময় হয়।

উপস্থিত সদস্যদের আন্তরিকতা এবং স্বতঃস্ফূর্ত সহযোগিতা কামনার মাধ্যমে সভার সমাপ্তি হয়।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × two =

আরও পড়ুন