কক্সবাজারে ৩ পর্যটকের মৃত্যুর ঘটনায় পৃথক মামলা

fec-image

কক্সবাজার শহরে ও উখিয়ায় মৃত্যু হওয়া ২ পর্যটক তরুণীর অভিভাবক বাদী হয়ে পরিকল্পিত হত্যার অভিযোগ এনে পৃথক ২টি মামলা দায়ের করেছেন।

এছাড়াও শহরের সী-গাল হোটেলে অবস্থান নেওয়া পর্যটক মারা যাওয়ার ঘটনায় পুলিশ ইউডি মামলা করেন। এরই মধ্যে কক্সবাজার শহরের কলাতলি হোটেল বীচ হলিডেতে অবস্থানকারী পর্যটক লাবণী আকতারের মৃত্যুর ঘটনায় তার বাবা মনির হোসেন বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

উখিয়াস্থ ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপে অবস্থান নেওয়া মাফুয়া খানমের মৃত্যুর ঘটনায় ভাই ছৈয়দুল ইসলাম বাদী হয়ে উখিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো. সেলিম জানান, বৃহস্পতিবার লাবণীর বাবার দায়ের করা মামলায় ৪ জনকে আসামি করা হয়েছে।

আসামিদের মধ্যে যাত্রাবাড়ী এলাকার মো. জাহাঙ্গীরের ছেলে কামরুল আলম ও আবদুর রহমানের ছেলে আরিফ রহমান নিলুকে আটক করা হয়েছে। এই মামলায় পলাতক রয়েছেন শরিয়তপুর জেলার নুরিয়া এলাকার মোশারফ হোসেনের ছেলে তানজিল হাসান ও নারায়ণগঞ্জ জেলার বাসিন্দা মাহিম হাসান অনিক।

সেলিম উদ্দিন আরো জানান, মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয় লাবণী আকতার এক আত্মীয়দের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে বের হয়েছিল।
এ ঘটনায় অভিযুক্ত ৪ জন কৌশলে তার মেয়েকে কক্সবাজার এনে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছেন। এ ঘটনায় ২ জনকে আটক করা হলেও অপর ২ জন পালিয়ে গেছে।

এদিকে, কক্সবাজার সাগর পাড়ের তারকা মানের হোটেল সী-গালে বুধবার (১৮ মে) রাতে মো.মনিরুল ইসলাম নামের এক পর্যটকের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় স্ত্রী পরিচয়ে হোটেলে ওঠা লিজা রহমান ঊর্মিকে পুলিশ আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত রেখেছে।

স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে ২ জন বুধবার বিকেল সাড়ে ৫ টায় সী-গাল হোটেলে অবস্থান নেন। ওখানে রাত সাড়ে ১২ টার দিকে অসুস্থতাবোধ করলে মনিরুলকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে বৃহস্পতিবার রাত ১টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় স্ত্রী পরিচয়ে সঙ্গে থাকা নারীকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। কিন্তু তার স্বামী-স্ত্রী নয় বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটক নারী স্বীকার করেন। হত্যার কোন আলামত প্রাথমিকভাবে পাওয়া না যাওয়ায় ইউডি (আনইউজুয়াল ডেথ) মামলা রেকর্ড করা হয়েছে।

অপরদিকে, বুধবার (১৮ মে) সন্ধ্যায় উখিয়াস্থ ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপে অবস্থান নেয়া মাফুয়া খানমের মৃত্যুর ঘটনায় ভাই ছৈয়দুল ইসলাম বাদী হয়ে উখিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন বলে নিশ্চিত করেন ওসি (তদন্ত) গাজি সালা উদ্দিন।

উখিয়া থানার ওসি (তদন্ত) সালা উদ্দীন জানান, বৃহস্পতিবার (১৯ মে) দুপুরে আটক একজনকে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেন। ১৮ মে সকালে গোপালগঞ্জের তরুণী মাফুয়া খানম দিনাজপুরের নাছির উদ্দিন নামের যুবকের সঙ্গে স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে হোটেল রয়েল টিউলিপে উঠেন।

একইদিন দুপুরে খাবার শেষে দুইজনই নিজেদের কক্ষে অবস্থান নেন। এর কিছুক্ষণ পর তরুণীর শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কথা অবহিত করা হলে তাকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তবে তারা স্বামী-স্ত্রী ছিল না। প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে তার বোনকে কক্সবাজার এনে হত্যা করা হয় বলে এজাহারে অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ঘটনায় নাছির উদ্দিন পুলিশের হাতে আটক হয়ে কারাগারে রয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: কক্সবাজার, মামলা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

10 + 3 =

আরও পড়ুন