কাপ্তাইয়ে প্রবারণায় করোনা মুক্তি লাভের আশায় প্রার্থনা

fec-image

পাহাড়ের বসবাসরত বৌদ্ধ ধর্মালম্বী মারমা সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ বা প্রবারণা পূর্নিমা হলো তাদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব। এই দিন ঘরে ঘরে পিঠা তৈরি করা হয়। রাতে গৌতম বুদ্ধের মহা চুুলকে পুুুুজা ও উৎসর্গ করে ফানুসবাতি উড়ানো হয়। এইছাড়া বুুুুদ্ধ মূর্তিকে স্নান, পঞ্চশীল ও অষ্টশীল গ্রহণ করেন অনেকে।

এদিকে শুভ প্রবারণা উপলক্ষে কাপ্তাই উপজেলার শত বছরের ঐতিহ্যবাহী চিৎমরম বৌদ্ধ বিহার এবং উপজেলার অনেক বিহারে শনিবার(৩১ অক্টোবর) সকাল থেকে অনুষ্ঠিত হয় নানা ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল থেকে দায়ক দায়িকাগণ উপস্থিত হন বিহারে। বুদ্ধ পুজা, বুদ্ধকে স্নান করানো, সমবেত প্রার্থনাসহ নানান আয়োজনে এই উৎসব পালিত হয়। প্রার্থনায় করোনা হতে মুক্তি লাভের আশায় বুদ্ধের আর্শীবাদ কামনা করা হয়। সন্ধ্যায় চিৎমরম বৌদ্ধ বিহারে হাজার বাতি প্রজ্জলন এবং ফানুস বাতি উড়ানো হয়।

শুভ প্রবারণা উৎসব উপলক্ষে চন্দ্রঘোনা রাইখালী রায় সাহেব বৌদ্ধ বিহারের দায়ক দায়িকাদের উদ্যোগে শনিবার সন্ধ্যায় কর্নফুলি নদীতে জল বুদ্ধকে উৎসর্গ করে জাহাজ ভাসানো হয় এবং ফানুস উড়ানো হয়।

এই সময় কাপ্তাই থানার ওসি মো. নাসির উদ্দীন, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বির্দশন বড়য়া, রায় সাহেব বৌদ্ধ বিহার এর সভাপতি থোয়াইসাপ্রু চৌধুরী রুবেল, উপজেলা স্কাউটস এর সম্পাদক মাহাবুব হাসান বাবু, কাপ্তাই প্রেসক্লাবের সভাপতি কবির হোসেন , সাধারণ সম্পাদক ঝুলন দত্ত , চন্দ্রঘোনা থানার এসআই মো. কাউছার হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ উপলক্ষে চিৎমরম বৌদ্ধ বিহার এর বিহারধ্যক্ষ পার্বত্য চট্টগ্রামের সর্বজন শ্রদ্ধেয় ধর্মীয় গুরু ভদন্ত পামাক্ষা মহাথের সকলকে শুভেচ্ছা জানান।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: করোনা, কাপ্তাইয়ে, প্রবারণায়
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eight − three =

আরও পড়ুন