চকরিয়ায় কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় ট্রলি চালকসহ নিহত-২, আহত-১

fec-image

চট্টগ্রাম কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়ায় বোঝাইকৃত ট্রলির সাথে পন্যবাহী কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কায় দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছে। এ সময় ট্রলির অপর আরেক আরোহী গুরুতর আহত হয়।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে কক্সবাজার মহাসড়কের উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের কলাতলী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন, পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর মেহেরনামা তেইল্যাকাটা এলাকার নুরুল আবছারের ছেলে ও ট্রলি চালক মো. আসিফ (২৩) এবং একই এলাকার আব্দুল খালেকের ছেলে মামুনুর রশিদ (২৬)। এ সময় জাহাঙ্গীর আলম নামের অপর এক আরোহী ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

হারবাং ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. ইসমাইল  ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের হারবাং ইউনিয়নস্থ কলাতলী নামক এলাকায় কক্সবাজার অভিমুখী একটি পন্যবাহী কাভার্ডভ্যান বিপরীত দিক থেকে আসা বোঝাইকৃত ট্রলি গাড়িকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই ট্রলির চালক মো. আসিফ মারা যায়। দুর্ঘটনার পরপরই ট্রলিতে থাকা অপর আরোহী গুরুতর আহত হওয়া মামুনুর রশিদ ও জাহাঙ্গীর আলমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মামুনুর রশিদ মারা যায়। অপর আহত জাহাঙ্গীর আলম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

চিরিংগা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মাহবুব আলম বলেন, বৃহস্পতিবার সকালে পেকুয়া থেকে টিউবওয়েল সরঞ্জাম ও কয়েকজন শ্রমিক নিয়ে মহাসড়ক দিয়ে একটি ট্রলি লোহাগাড়া দিকে যাচ্ছিল। সকাল পৌনে ৯টার দিকে ট্রলিটি চট্টগ্রাম কক্সবাজার মহাসড়কের হারবাং ইউনিয়নের কলাতলী এলাকায় পৌছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পন্যবাহি কাভার্ড ভ্যান ট্রলিকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই ট্রলির চালক আসিফ মারা যায়। এ সময় মামুনুর রশিদ ও জাহাঙ্গীর আলম নামে তার দুই সহপাঠি আহত হয়। তবে আহত মামুনুর রশিদ মারা যাওয়ার বিষয়টি অবগত নন বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, দুর্ঘটনার পরপরই হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দুর্ঘটনা কবলিত গাড়ি দুইটি জব্দ ও নিহত ট্রলি চালক মো. আসিফের লাশ উদ্ধার করে ফাঁড়িতে নিয়ে আসে। দুর্ঘটনার ব্যাপারে নিহত মো. আসিফের পরিবারের কোন অভিযোগ না থাকায় এবং নিহতের পরিবারের আবেদনের প্রেক্ষিতে লাশ বিনা ময়নাতদন্তে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে তিনি জানান।‌

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: নিহত, সড়ক দুর্ঘটনা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eight − 5 =

আরও পড়ুন