‘কিলারের’ ব্যাটে রক্ষা পেলো দক্ষিণ আফ্রিকা

fec-image

আরও একটা লো স্কোরিং ম্যাচ দেখলো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। নেদারল্যান্ডসের ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে তাসের ঘরের মতো ভেঙে যায় প্রোটিয়া টপ অর্ডার। ১২ রানে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম সারির চার ব্যাটারকে সাজঘরে ফিরিয়ে ম্যাচে ফেরে ডাচরা। তবে প্রোটিয়াদের বিপর্যয়ের মুখে ঢাল হয়ে দাঁড়ান ডেভিড মিলার। তার অপরাজিত ফিফটিতে শেষ পর্যন্ত জয়ের বন্দরে নোঙর করে দল।

গত রাতে নিউইয়র্কে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১০৩ রান সংগ্রহ করে নেদারল্যান্ডস। জবাবে খেলতে নেমে ১৮ ওভার ৫ বলে ৬ উইকেট হারিয়ে জয় পেয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

১০৪ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি প্রোটিয়াদের। ইনিংসের প্রথম বলেই ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউটের শিকার হন কুইন্টন ডি কক। কোনো বল না খেলেই ডাক খেয়ে সাজঘরে ফেরেন এই অভিজ্ঞ ওপেনার। সুবিধা করতে পারেননি আরেক ওপেনার রেজা হেন্ড্রিকসও। ১০ বল খেলে মাত্র ৩ রান করতে পেরেছেন তিনি।

তিনে নেমে ব্যর্থ এইডেন মার্করাম। ৩ বল খেলে রানের খাতাই খুলতে পারেননি অধিনায়ক। টপ অর্ডার ব্যাটারদের সঙ্গে ব্যর্থতার মিছিলে যোগ দেন হেনরিখ ক্লাসেনও। ৭ বল খেলে ৪ রানে থেমেছেন এই ইনফর্ম ব্যাটার। ১২ রানে টপ অর্ডারের চার ব্যাটারকে হারিয়ে হারের শঙ্কায় পড়েছিল দল।

তবে এমন পরিস্থিতি থেকে প্রোটিয়াদের উদ্ধার করেন ক্রিস্টিয়ান স্টাবস ও ডেভিড মিলার। এই দুজনে পঞ্চম উইকেট জুটিতে যোগ করেন ৬৫ রান। স্টাবস ৩৭ বলে ৩৩ রান করে সাজঘরে ফিরলেও দলকে জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছেন কিলার খ্যাত মিলার। তার ব্যাট থেকে এসেছে ৫১ বলে অপরাজিত ৫৯ রান।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই প্রোটিয়া পেসারদের তোপের মুখে পড়ে নেদারল্যান্ডস। দলীয় ফিফটির আগেই সাজঘরে ফেরেন ৬ ব্যাটার। ডাচদের এমন আসা-যাওয়ার মিছিলে একমাত্র ব্যাতিক্রম ছিলেন সাইবার এঙ্গেলব্রাখট। এই অলরাউন্ডার চারে নেমে ৪৫ বলে করেছেন ৪০ রান। তাতে কোনোরকমে একশ পেরোয় তাদের ইনিংস।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন