কুতুপালং এক্স-৪ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সিআইসি পাভেলকে প্রত্যাহার

fec-image

উখিয়া কুতুপালং এক্স-৪ ক্যাম্পের ক্যাম্প ইনচার্জ (সিআইসি) শামীমুল হক পাভেলকে প্রত্যাহার করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

সোমবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুর পৌনে ২টার দিকে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে কী কারণে শামীমুল হক পাভেলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে সেটা নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেননি তিনি।

ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের একাধিক সূত্র বলছে, রোহিঙ্গাদের মহাসমাবেশ করার অনুমতি দেওয়ার কারণেই তাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ওই মহাসমাবেশ যে জায়গায় হয়েছে ওই ক্যাম্পের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। তবে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম বলেন, ‘এটা জেনারেল বিষয়। বদলিজনিত কারণে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য, গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা সংকটের দুই বছর উপলক্ষে মহাসমাবেশের ডাক দেন রোহিঙ্গা নেতা মুহিব উল্লাহ। ঘোষণা অনুযায়ী প্রায় পাঁচ লাখ রোহিঙ্গার সমাগম ঘটে ওই মহাসমাবেশে।

তখন বলা হয়েছিল, সমাবেশের বিষয়ে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো অনুমতি দেওয়া হয়নি। কিন্তু রোহিঙ্গা নেতারা দাবি করেছিলেন, তারা লিখিত আবেদনের মাধ্যমে সিআইসি থেকে অনুমতি নিয়েছিলেন।

এরপর থেকে বিভিন্ন গণমাধ্যমে রোহিঙ্গাদের মহাসমাবেশ ঘিরে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। এমনকি ২৫ আগস্টের পরে স্থানীয়রাও এ নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। যার ফলে ক্যাম্প ইনচার্জ শামীমুল হক পাভেলকে প্রত্যাহার করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জানিয়েছেন, ‘‘জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি আদেশে উখিয়ার কুতুপালং মধুরছড়া ৩-৪ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ইনচার্জ শামীমুল হক পাভেলকে বদলি করা হয়েছে ঢাকায়। সেখানে বিমানবন্দর এক্সটেনশনের উপ-প্রকল্প পরিচালক পদে তাকে বদলি করার কথা আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে। এর বাইরে কিছু জানি না।’’

তবে অনুমতির বিষয়টি অস্বীকার করে শামীমুল বলেছেন, ‘‘অভিযোগগুলো সত্য নয়। আমি সঠিকভাবে দায়িত্বপালন করে এসেছি। গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গা নেতা মুহিব উল্লাহর স্বাক্ষরিত একটি আবেদন আমার কাছে নিয়ে আসেন। স্বাভাবিকভাবে কেউ আবেদন নিয়ে আসলে সেটি গ্রহণ করা আমার দায়িত্ব। তাই আমি সেটি গ্রহন করে ৩-৪ ঘণ্টার ভেতর উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলাম। উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ আমাকে কিছুই বলেননি। তাই আমিও রোহিঙ্গাদের অনুমতির বিষয়ে কিছু বলেনি। এরই মাঝে রোহিঙ্গারা সমাবেশ করে। এর বেশি কিছু না।’’

এ বিষয়ে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম জানিয়েছেন, ‘‘শুধু পাভেলই নন, একসঙ্গে ৭ জন সিআইসিকে বদলি করা হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ীই তাদের বদলির আদেশ দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। রোহিঙ্গাদের সমাবেশের কারণে তাকে বদলি করার বিষয়টি সত্য নয়।’’

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: কুতুপালং এক্স-৪ ক্যাম্পে, মুহিব উল্লাহ, রোহিঙ্গা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 − seven =

আরও পড়ুন