এরিয়া ম্যানেজারের বিরুদ্ধে অভিযোগ

খাগড়াছড়িতে ছুটি না পাওয়ায় অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে বাঁচাতে পারেনি এনজিও কর্মী

fec-image

খাগড়াছড়ির রামগড় বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা পদক্ষেপ মানবিক উন্নয়ন (এনজিও ) থেকে ছুটি না পাওয়ায় অসুস্থ অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে বাঁচাতে পারেনি মাঠকর্মী নবরতন চাকমা। আর তার স্ত্রীর মৃত্যুর জন্য তিনি দায়ী করেছেন মানিকছড়ি এরিয়া ম্যানেজার ইকবাল বিন তৈয়বকে।

শারীরিককভাবে দুবর্ল বাড়ীতে একা থাকা অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর পাশে থাকার জন্য ২ দিন ছুটি চাইলেও ছুটি দেয়নি এরিয়া ম্যানেজার। অসুস্থাতার বিষয়টি জানানোর পরও মন গলেনি ম্যানেজারের।পরে অসুস্থতা নিয়ে মৃত্যু হয় মাঠকর্মী নব রতন চাকমা স্ত্রী বিপাশী চাকমার।

মাঠকর্মী নবরতন চাকমা জানান ,‘ রামগড়ে পদক্ষেপ মানবিক উন্নয়ন সংস্থার মাঠকর্মী হিসেবে আট মাসে যোগ দিই। স্ত্রীকে নিয়ে ভাড়া বাসায় থাকতাম।

সোমবার আমাকে প্রশাসনকি কারণে রামগড় থেকে মানিকছড়িতে বদলি করা হয় । আড়াই মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে রামগড় ভাড়া বাসায় রেখে মানিকছড়িতে যোগ দিই। যোগদানের পর অসুস্থ স্ত্রী আমাকে ফোন করে তার অসুস্থতার কথা জানায়।

স্ত্রীর পাশে থাকার জন্য আমি একাধিকবার ম্যানেজারের কাছে ছুটি চাই । স্ত্রী অসুস্থ জেনেও তিনি আমাকে ছুটি দেয়নি। ছুটি না পাওয়ায় বাড়ি যেতে পারেনি।

মাঠকর্মী নবরতন চাকমা`র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট

তিনি আরো জানান,‘ বুধবার আমার স্ত্রী গুরতর অসুস্থ হোন। এসময় সহকর্মীরা আমাকে দ্রুত রামগড় হাসপাতালে আসতে বলে। তখনও জানতাম না আমরা স্ত্রী মারা গেছে। হাসপাতালে পৌঁছানোর পর জানতে পারলাম আমার স্ত্রী মারা গেছে। তার সাথে শেষ দেখাও হয়নি , কোন কথা বলার সুযোগও পায়নি।

নবরতন চাকমা এ প্রতিবেদককে আরো জানান,‘ ম্যানেজার আমার স্ত্রীর অসুস্থতার কথা জানার পর ছুটি দেয়নি। আমার স্ত্রীর অসুস্থতার কথা রামগড়ের বাঞ্চ ম্যানেজার এরিয়া ম্যানেজারকে ফোনে জানালে তিনি বাঞ্চ ম্যানেজারকে ‘গালিগালাজ’ করে।

উনার কারণে আমার স্ত্রী মারা গেছে। আমার স্ত্রী অসুস্থ ছিল। এটি স্যারকে বারবার বলার পরও তিনি আমাকে ছুটি দেয়নি। স্ত্রীর পাশে থাকলে তার কখনো মৃত্যু হত না। আমি ম্যানেজারের শাস্তি চাই।’’

বিষয়টি নিয়ে মাঠকর্মী নবরতন চাকমা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আবেগঘন পোস্ট দেওয়ার পর সমালোচনার ঝড় উঠে। এমন অমানবিক কর্মকাণ্ডের জন্য এরিয়া ম্যানেজারকে দুষছেন সবাই। করোনার মতো মহামারীর সময়েও এমন অমানবিক কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান অনেকে।

বিপাশী চাকমার মৃত্যুর জন্য এরিয়া ম্যানেজারকে দায়ী করে বিচার দাবি করেছে স্বজনরা। তারা বলেন , এরিয়া ম্যানেজারের গাফিলতি কারণে বিপাশী চাকমার মৃত্যু হয়। তার গর্ভের সন্তানও মারা যায়। এরকম যাতে আর কারো ক্ষেত্রে না ঘটে। আমরা এর বিচার চাই।

তবে এই ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অস্বীকার করেছে পদক্ষেপ মানবিক উন্নয়ন কেন্দ্র মানিকছড়ি এরিয়া ম্যানেজার ইবকাল বিন তৈয়ব । এই নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেয়ায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন ঐ কর্মকর্তা।

তিনি বলেন ,‘ পদক্ষেপের একজন কর্মী হয়ে নব রতন এভাবে ফেসবুকে লিখতে পারে না। তার অভিযোগ মিথ্যা। তিনি আমার কাছে সেভাবে ছুটি চাননি। তার স্ত্রী স্টোক করে মারা গেছে । তিনি(নব রতন চাকমা) সেখানে থাকলেও মারা যেত আর না থাকলেও মারা যেত।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 + five =

আরও পড়ুন