খাগড়াছড়িতে দিন-দুপরে ঘটছে বাসা-বাড়ীতে চুরি

fec-image

খাগড়াছড়িতে উদ্বেগজনকভাবে বাড়ছে চুরির ঘটনা। তাও আবার দিন-দুপুরে। সাংবাদিক ও শিক্ষকের পর এবার দিন-দুপুরে চুরি হয়েছে এক রাজনৈতিক নেত্রীর বাসায়। অপরদিকে রাতের পাশাপাশি দিন-দুপুরে চুরির ঘটনা ঘটলেও চোর থাকছে অধরা।  উদ্ধার হচ্ছে না চুরি হওয়া জনিসিপত্র। ফলে অনেকে চুরির শিকার হলেও আইনের আশ্রয় নিচ্ছে না।

জানা গেছে, শনিবার(২৯ আগস্ট) জেলা শহরের মিলনপুরে একটি রাজনৈতিক দলের সাধারণ সম্পাদিকার বাসায় চুরির ঘটনা ঘটে। সকাল ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে চোর প্রথমে দরজার তালা ভেঙ্গে বাসায় ঢুকে। পরে আলমিরা ভেঙ্গে একটি ল্যাপটপ ও নগদ ৬০ হাজার টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়।

ওই নেত্রী জানান, তিনি সকাল সাড়ে ৭টায় ছোট ছেলেকে নিয়ে বাসা থেকে বের হন। সকাল পৌনে ৮টার দিকে তার স্বামী বিদ্যালয়ে চলে যান। বড় ছেলে সকাল ৯টার দিকে বাসায় এসে ঠিকঠাক দেখে চলে যায়।

কিন্তু সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ছোট বোন বাসায় এসে দেখে দরজার তালা ভাঙ্গা। ভিতরে আলমিরা ভাঙ্গাসহ সব কিছু এলোমেলো। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ওসি মোহাম্মদ রশিদ বলেন, বিষয়টি আামরা গুরুত্বসহকারে খতিয়ে দেখছি।

এদিকে গত ১৯ আগস্ট জেলা সদর বাঙ্গালকাটি এলাকায় দিন-দুপুরে বেসরকারি টিভি চ্যানেল আরটিভির সাংবাদিক মো. শাহজাহান ও দু‘জন শিক্ষকের বাড়ীতে চুরি হয়েছে।

এসময় সাংবাদিক শাহজাহানের ব্যবহৃত ল্যাপটপ, ক্যামেরা, মোবাইল ও নগদ ২০ হাজার টাকা নিয়ে যায়। পাশের বাসায় ভাড়া থাকেন খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের প্রভাষক পারভেজ আলম ও সরকারি মহিলা কলেজের প্রভাষক মো. মামুনসহ দু‘জন।

এবাসাতেও ঢুকে সব জিনিসপত্র এলোমেলো অবস্থায় পাওয়া যায়। খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের প্রভাষক পারভেজ আলম জানান, তিনি খাগড়াছড়ির বাইরে আছেন। তবে তাদের রুম থেকে একটি মোবাইল ও একটি ল্যাপটপ নিয়ে গেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

সাংবাদিক মো. শাহজাহান বলেন, আমি বেলা ১১টায় বাসা থেকে বের হই। বিকাল ৫টার দিকে বাসায় এসে দেখি দরজার হুক খোলা। ভেতরে ঢুকে দেখি আমার ব্যবহৃত ল্যাপটপ, ক্যামেরা, নগদ ২০ হাজার টাকা এবং মোবাইল নিয়ে গেছে।

এ ঘটনায় সাংবাদিক মো. শাহজাহান বাদী হয়ে মামলা করলেও এখনো আসামি আটক কিংবা চুরি হওয়া মালামাল উদ্বার হয়নি।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: খাগড়াছড়ি, চুরি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one + three =

আরও পড়ুন