গুইমারা উপজেলায় প্রচার-প্রচারণা তুঙ্গে, জয়ের জন্য মরিয়া আ.লীগ

fec-image

দ্বিতীয় পর্যায় আগামী ১৫ জুন অনুষ্ঠিতব্য উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-২০২২ কে সামনে রেখে খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা উপজেলায় শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারণা। নিজের পছন্দের প্রতীক মনমতো বেছে নিয়ে প্রার্থীরা ছুঁটে বেড়াচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণার শেষ মুহুর্তে জয়ের জন্য মরিয়া আ.লীগ সুযোগ সন্ধানে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

বিএনপির প্রার্থী ছাড়া উপজেলার সরকার দলীয় প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। নৌকার প্রার্থীরা নির্বাচনী সভা করে সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়নের কথা তুলে ধরছেন ভোটারদের কাছে। আর স্বতন্ত্র প্রার্থীরা দাবি করেছেন নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনের জন্য।

সোমবার (১৩ জুন) গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দলীয় মনোনয়ন পাওয়া গুইমারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক গুইমারা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেমং মারমা নির্বাচনীয় পথ সভায় ভোটারদের কাছে বিগত পাঁচ বছরে গুইমারা উপজেলা যে সমস্ত উন্নয়ন করেছে তা ভোটারদের মাঝে উপস্হাপন করে নিজের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতির নানা দিক তুলে ধরছেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন প্রার্থী নির্বাচনের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ক্ষমতাসীন দলের ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেমং মারমা আওয়ামীলীগের দলীয় প্রতিক নৌকা নিয়ে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের কথা বলে ভোটারদের মন জয়ের জন্য ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুঁটে বেড়াচ্ছেন।

অন্যদিকে বর্তমান গুইমারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উশ্যেপ্রু মারমা আনারস প্রতিক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে তার পাঁচ বছরে উপজেলায় যে উন্নয়ন করেছেন তা নিয়ে ভোটারদের কাছে দিনরাত ছুটে বেড়াচ্ছেন।

প্রচার-প্রচারণায় পিছিয়ে নেই অন্য ২ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যা প্রার্থী। মো. আইয়ুব আলী গত ইউপি নির্বাচনে হাফছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিপক্ষে নির্বাচন করে হেরে যান। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে দল তাকে উপজেলা আওয়ামীলীগের পদ থেকে বহিস্কার করে। এবারও সে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল হয়ে যায়। মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার পর সে মহামান্য হাইকোর্টে রিট করে তার মনোনয়নপত্র বৈধ হওয়ার পর ভোটের মাঠ নড়েচড়ে উঠেছে। মো.আইয়ুব আলী তার মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে ভোটারের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

অন্যদিকে চেয়ারম্যান প্রার্থী রুইসাঅং মার্মা সে তার দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে ভোটারের দ্বারে দ্বারে পরির্বতের অঙ্গীকারের কথা বলে প্রতিটি এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন।

গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন কংজরী মারমা মাইক প্রতীক, ফখরুল ইসলাম (লিটন) তালা প্রতীক, মানিন্দ্র ত্রিপুরা টিউবওয়েল প্রতীক, মো. ইখতেয়ার উদ্দীন চৌধুরী টিয়া পাখি প্রতীক নিয়ে ভোটের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। ভোটের মাঠ জরিপে কংজরী মারমা মাইক প্রতীক নিয়ে এগিয়ে রয়েছেন।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বর্তমান গুইমারা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মিজ ঝর্না ত্রিপুরা ফুটবল প্রতীক নিয়ে ভোটারদের কাছে তার পাঁচ বছরের উন্নয়নের কথা বলে আগামী নির্বাচনে জয়ের জন্য প্রতিটি গ্রামগঞ্জের সাধারণ ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। পরির্বতের অঙ্গীকার নিয়ে ফাতেমা বেগম কলস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনীয় প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সহকারী রির্টানিং অফিসার মুহাম্মদ আশরাফুল আলম বলেন, নির্বাচন কমিশন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। প্রার্থীরা তাদের প্রচার-প্রচারণা সুষ্ঠুভাবে চালিয়ে যাচ্ছে। আগামী ১৫ জুন ভোটাররা শান্তিপূর্ণভাবে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবে। গুইমারা উপজেলায় ১৪টি ভোট কেন্দ্রের ৯২টি বুথে ৩৩ হাজার একশত ৫৭ জনের ভোট গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আ. লীগ, গুইমারা, নির্বাচন
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 + seven =

আরও পড়ুন