“হামলার ঘটনায় দুই বিজিবি সদস্য গুরুতর আহত হয় এবং স্থানীয় নুর নাহার নামের(১২) এক কিশোরী ও আয়ুব আলী নামের এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।”

গ্রেফতার আতঙ্কে পুরুষশূণ্য উখিয়ার নলবনিয়া-আঞ্জুমান পাড়া গ্রাম

fec-image

কক্সবাজারের উখিয়া সীমান্তে বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন (বিজিবি)’র উপর ইয়াবা কারবারিদের হামলা এবং মামলার ঘটনায় মিয়ানমার সীমান্তবর্তী ইউনিয়ন পালংখালীর নলবনিয়া- আঞ্জুমান পাড়া গ্রাম গ্রেফতার আতঙ্কে জনমানব শুন্য হয়ে পড়েছে। হামলার ঘটনায় দুই বিজিবি সদস্য গুরুতর আহত হয় এবং স্থানীয় নুর নাহার নামের(১২) এক কিশোরী ও আয়ুব আলী নামের এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার(২৮ জুন) সকালে উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের নাফনদের তীরবর্তী নলবনিয়া গ্রামে ইয়াবার চালান আটক করতে গিয়ে হামলার শিকার হয় বিজিবি সদস্যরা।

৩৪ বিজিবির আঞ্জুমান পাড়া বিওপির নায়েক সুবেদার নুরুল আলমের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি টহলদল স্থানীয় লুৎফুর রহমান প্রকাশ লুতুইজ্জার বাড়িতে ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধারে অভিযানে যায়। এ সময় ইয়াবা কারবারি লুতু তার পরিবারের সদস্য ও আত্মীয়স্বজনরা দেশীয় অস্ত্রসহ বিজিবির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। ইয়াবা কারবারির দল বিজিবি সদস্যদের ওপর উপর্যুপরি আঘাত করলে নায়েক সুবেদার নুরুল আলমের হাত ভেঙে যায়। ল্যান্স নায়েক জিল্লুর রহমানও গুরুতর জখম হয়। এতে আত্মরক্ষার্থে বিজিবি পাল্টা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়। ওই সময় নলবনিয়া গ্রামের ইয়াবা কারবারি লুৎফুর রহমান লুতুইজ্জ্যার ঘর ছাড়াও নিরীহ কিছু স্থানীয় গ্রাম বাসীর ঘর-বাড়িতে হামলা ভাংচুর চালায় বিজিবি। এতে ছেলের খতনা উপলক্ষ্যে আয়ুব আলীর বাড়িতে মেজবান চলছিল। ওই বাড়িতে বিজিবি হামলা করলে বসত বাড়ির ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয় বলে জানান তাঁর স্ত্রী।

প্রবাসী খাইরুল বশর, আলী আকবরের ঘর বাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে কান্না জড়িত কন্ঠে জানান, আয়ুব আলী ও আলী আকবরের স্ত্রীরা। নলবনিয়া গ্রামের ফরিদুল আলমের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম জানান, বিজিবির সাথে কাদের সাথে কি ব্যাপারে ঘটনা হয়েছে আমরা জানিনা। এ ঘটনায় বাড়িতে থাকতে পারছিনা। ঘরে ভয়ে রান্না বান্নাও করতে না পারায় অনাহারে দিন কাটছে। একই কথা বলেছেন বাদশা মিয়ার স্ত্রী রেহেনা বেগম, প্রবাসী মাহবুব আলমের স্ত্রী দিলোয়ারা বেগম সহ অন্তত অর্ধশতাধিক নারী ও শিশুরা।

পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বিজিবি সদস্যদের উপর হামলাটি অত্যান্ত দুঃখজনক। এই হামলার সাথে যারা জড়িত তাদেরকে গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি। তবে এতে যেন নিরহ মানুষ হয়রানীর শিকার না হয় সেদিকে নজর দেওয়ার জন্য আইশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি অনুরোধ রাখছি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উখিয়ার থানার ওসি মো. আবুল খায়ের বলেন, বিজিবির উপর হামলা, অস্ত্র প্রদর্শন, মাদক উদ্ধারে দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে বাধা দানের অভিযোগ এনে ইয়াবা কারবারি লুৎফুর রহমান সহ ২৮ জনের বিরুদ্ধে উখিয়া থানায় পৃথক ৩টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিজিবির ওপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের পুলিশ কাজ করছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কক্সবাজার ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল আলী হায়দার আজাদ আহমদ বলেন, উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়নের নলবনিয়া গ্রামের লোকজন লোহার রড দিয়ে বিজিবির উপর আক্রমণ করায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করায় ওই গ্রামের পুরুষের ভয়ে পালিয়ে গেছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: উখিয়া, গ্রেফতার
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fourteen + 13 =

আরও পড়ুন