চকরিয়ায় একদিনে চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু

fec-image

কক্সবাজারের চকরিয়ায় একদিনে চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের অর্থায়নে সাড়ে ৬ কোটি টাকা বরাদ্দের বিপরীতে দুইটি উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবন এবং স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ এলজিইডির অর্থায়নে ১ কোটি ৬২ লাখ টাকা বরাদ্দের বিপরীতে দুইটি সড়ক মেরামত কাজের উদ্বোধন করেছেন চকরিয়া-পেকুয়া আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম।

শনিবার (৪ জানুয়ারি) সকালে এমপি জাফর আলম প্রথমে শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের অর্থায়নে ৩ কোটি ২৭ টাকা ব্যয়ে চকরিয়া উপজেলার কাকারা ইউনিয়নে শাহ উমরাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪ তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন। পরে দুপুরে তিনি একই বিভাগের অধীন ৩ কোটি ২৭ টাকা ব্যয়ে উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের দিগরপানখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪ তলা ভিত বিশিষ্ট একাডেমী ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের কাজ উদ্বোধন করেন।

অপরদিকে একইদিন বিকালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডির) অর্থায়নে ১ কোটি ২লাখ টাকা বরাদ্দের বিপরীতে চৌয়ারফাড়ি-বদরখালী সড়কের ১১৩৫ মিটার কার্পেটিং উন্নয়ন কাজ ও ৬০ লাখ টাকা বরাদ্দের বিপরীতে বদরখালী ইউপি-চৌয়ারফাঁড়ি সড়কের ৮৬০ মিটার এইচবিবি দ্বারা উন্নয়ন কাজ শুভ উদ্বোধন করেন এমপি জাফর আলম।

চকরিয়া উপজেলার কাকারা, ফাঁসিয়াখালী ও বদরখালী ইউনিয়নে ৮ কোটি টাকা বরাদ্দে চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, কক্সবাজার জেলা পরিষদের সদস্য আলহাজ আবু তৈয়ব, চকরিয়া উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী কমল কান্তি পাল প্রমুখ।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সকল সদস্য, বিদ্যালয়ের শিক্ষকমন্ডলী ও আওয়ামী লীগ সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি আলহাজ জাফর আলম এমপি বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষাখাতের উন্নয়নে পরিকল্পিতভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের জন্য মেধানির্ভর শিক্ষার সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচন করেছে। তাঁর সদিচ্ছার কারনে আজ শিক্ষার্থীরা বিনা বেতনে লেখাপড়া সুযোগ পাচ্ছে। শিক্ষার সুষ্ট পরিবেশ নিশ্চিতে সরকার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দে অবকাঠামোগত উন্নয়নে সব ধরণের কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন করছেন। সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে বাংলাদেশকে নিরক্ষতার অভিশাপ থেকে মুক্ত করা। সেইলক্ষ্যে সরকার কাজ করে যাচ্ছেন। স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশে শিক্ষার মান্নোয়নে জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকার অসাধারণ সাফল্য দেখিয়েছেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে বছরের প্রথমদিন শিক্ষার্থীরা নতুন পাঠ্যবই পাচ্ছে। লেখাপড়া করতে সব ধরণের উপবৃত্তি সুবিধা পাচ্ছে। মেধাবীদের সরকারি চাকুরী নিশ্চিত করা হচ্ছে। দেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চালু করা হয়েছে মিড ডে মিল প্রকল্পসহ নানা ধরণের প্রনোদনা প্রকল্প। যাতে শিক্ষার্থীরা এসব সুবিধা নিয়ে সুন্দর পরিবেশে লেখাপড়া করতে পারে। নিজেকে আগামীর জন্য দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে তৈরি করতে পারে।

জাফর আলম এমপি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মান্নোয়ন নিশ্চিতকল্পে আগামী পাঁচ বছরে টেকসই উন্নয়নে চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলার সবশিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাজানো হবে। সবাইকে মনে রাখতে হবে লেখাপড়ার মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদেরকে সুনাগরিক হিসেবে তৈরি করতে হবে। আজকের নতুন প্রজন্ম হবে আগামী দিনের দেশ গড়ার কারিগর। তাই সেইভাবে নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের তৈরি করতে সবাইকে সচেতনভাবে কাজ করতে হবে। আশাকরি শিক্ষার্থীরা যাতে কোন ভাবে বিপদগামী না হয় সেদিকে অভিভাবক ও শিক্ষকমন্ডলীকে সজাগ ভুমিকা পালন করতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আওয়ামী লীগ, এলজিইডি, প্রকৌশল বিভাগ
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one + twelve =

আরও পড়ুন