চকরিয়ায় নির্মিত হলো চিংড়ি ভাষ্কর্য

fec-image

দেশের অন্যতম নান্দনিক সৌন্দর্যরূপ ও লবণ, চিংড়ি উর্বর ভূমি হিসেবে পরিচিত কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা। এ উপজেলার প্রায় ২৫ হাজার আয়তন জুড়ে বিস্তৃত জমিতে চিংড়িসহ নানা প্রজাতির মৎস্যচাষে জড়িত লক্ষাধিক মানুষ।

প্রচার আছে, চকরিয়ার মৎস্য জোনে উৎপাদিত চিংড়ি মাছ দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও রপ্তানী হয়ে আসছে। এভাবে মৎস্য চাষের সাথে সম্পৃত্ত লক্ষাধিক মানুষের যেমন জীবনচিত্র পাল্টে যাচ্ছে, তেমনি বিদেশে রপ্তানী করে সরকার প্রতিবছর মৎস্য খাত থেকে কোটি কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করছে। এভাবে যুগের পর যুগ ধরে চকরিয়ার চিংড়ি জোন দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে বিশাল অবদান রেখে আসছে।

আর সম্পদ সমৃদ্ধ সম্ভাবনার চকরিয়ার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সভ্যতা ও চিংড়ি চাষের সঙ্গে জড়িত মানুষের জীবিকার সাথে সামঞ্জস্য রেখে চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরীর পরিকল্পনায় পৌরসভার অর্থায়নে পৌরভবনের প্রবেশপথে নির্মাণ করেছে ইতিহাস সমৃদ্ধ দৃষ্টিনন্দন চিংড়ি ভাষ্কর্য। তিনটি বিশাল আকৃতির চিংড়ি মাছ সাথে পানির নান্দনিক ফোয়ারা সমৃদ্ধ এই ভাষ্কর্যটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মাধ্যমে বিকালে সর্বসাধারণের জন্য উম্মুক্ত করা হয়েছে।

শনিবার বিকালে নবনির্মিত চিংড়ি চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের সাংসদ ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম আনুষ্ঠানিকভাবে ভাষ্কর্যটি উদ্বোধন ঘোষণা করেছেন।

চকরিয়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব মো. নুরুল আবচার, চকরিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মকছুদুল হক ছুট্টু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসি চৌধুরী। অনুষ্ঠানে মোনাজাত পরিচালনা করেন চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ জামে মসজিদের খতিব মাওলানা নেছারুল হক।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক মোসলেহ উদ্দিন মানিক, সহ-সভাপতি আমান উল্লাহ আমান, প্যানেল মেয়র বশিরুল আইয়ুব, চকরিয়া উপজো যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ কাউছার উদ্দিন কছির, চকরিয়া পৌরসভার মহিলা কাউন্সিলর আঞ্জুমান আরা বেগম প্রমুখ।

এমপি জাফর আলম বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন অগ্রগতির অংশ হিসেবে উন্নয়ন কর্মকান্ডে যেমন চকরিয়া পৌরসভা বদলে যাচ্ছে, তেমনি দর্শনীয় শৈল্পিক কর্মেও এগিয়ে যাচ্ছে চকরিয়া পৌরসভা।

চকরিয়া পৌরসভার অর্থায়নে নির্মিত দৃষ্টিনন্দিত এই ‘চিংড়ি ভাষ্কর্যটিতে তিনটি চিংড়ির প্রতিকৃতি স্থান পেয়েছে। এই শৈল্পিক ভাষ্কর্যটি ইতিহাস, ঐতিহ্য, সভ্যতা ও মানুষের জীবিকার সাথে সামঞ্জস্য রেখে নির্মিত হওয়ায় চকরিয়াকে আরো একধাপ এগিয়ে নেয়া হয়েছে।

চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী বলেন, আজ থেকে এই ‘চিংড়ি ভাষ্কর্যটি সবার জন্য উম্মুক্ত থাকবে। বিশেষ দিবসগুলোতে এই ভাষ্কর্যটি সর্বসাধারণকে বাড়তি আনন্দ দেবে। সেই প্রত্যাশা নিয়ে ফোয়ারা সমৃদ্ধ আধুনিকমানের এই ভাষ্কর্যটি নির্মাণ করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − 1 =

আরও পড়ুন