চকরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলা মা-মেয়ে আহত

fec-image

কক্সবাজারের চকরিয়ায় পৈত্রিক ভোগ দখলীয় জমি জবর দখল চেষ্টায় বাঁধা দেয়ায় প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসী হামলায় মা-মেয়েসহ দুইজন আহত হয়েছে।

সোমবার বিকাল ৩টায় চকরিয়া পৌর এলাকার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কোচপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সন্ত্রাসী হামলায় আহত মা-মেয়েরা হলেন, পৌর এলাকার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কোচপাড়া এলাকায় মৃত ছৈয়দ আহামদ এর স্ত্রী কুলছুমা বেগম (৪২) ও তার কন্যা তোফা জন্নাত মিলি (১১)। আহতবস্থায় তাদেরকে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় আহত কুলছুমা বেগমের ছেলে সোহেল রানা পারভেজ বাদী হয়ে ৯ জনের নাম উল্লেখ করে আরও অজ্ঞাতনামা ৫/৭ জনকে আসামি করে ঘটনার দিন রাতে চকরিয়া থানায় একটি এজহার দায়ের করেছেন।

সন্ত্রাসী হামলায় আহত কুলছুমা বেগমের ছেলে সোহেল রানা পারভেজ থানায় দায়ের করা এজহারে দাবি করেন, চকরিয়া পৌর এলাকার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কোচপাড়া এলাকার মৃত খুইল্যা মিয়ার পুত্র মকছুদ আহামদ, তার ছেলে জসিম উদ্দিন, মো. হাশেমের পুত্র মো. কফিল উদ্দিন, তারভাই মো. মিরাজ উদ্দিন, মৃত সিরাজের পুত্র জাহাঙ্গীর আলম, মৃত জালাল আহামদের পুত্র নাসির ড্রাইভার, তার স্ত্রী আয়শা বেগম, মো. হাশেমের স্ত্রী নুর আয়শা বেগম, মকছুদ আহামদের স্ত্রী রিজোয়ারা বেগম ও তার মেয়ের জামাই নুরুচ্ছফা নেতৃত্বে আরও অজ্ঞাতনামা ৫-৭জন লোক আমাদের পৈত্রিক ভোগ দখলীয় জমি জবর দখলের চেষ্টা চালালে আমরা তাদের বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করি। এ সময় প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা আমার মা কুলছুমা বেগম ও বোন তোফা জন্নাত মিলি উপর সশস্র হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে।

সোহেল রানা পারভেজ আরও দাবি করেন, জবর দখলকারী ও সন্ত্রাসীরা বর্তমানেও আমার পৈত্রিক জমি জরব দখল করে স্থাপনা নির্মাণসহ আমি ও আমার পরিবারের সদস্যদের অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ এবং হত্যা করিয়া লাশ গুম করার হুমকি দেয়। ফলে অনন্য উপায় হয়ে আমি থানায় এজহার দায়েরে বাধ্য হই।

আহত কুলছুমা বেগমের ছেলে সোহেল রানা পারভেজ, বলেন, জমি বিরোধের জের ধরে ২০০৯ সালেও প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা আমার মায়ের উপর সশস্র হামলা চালিয়ে হত্যা চেষ্টা চালায়। এ ঘটনায় আমার মা বাদি হয়ে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে চকরিয়া থানায় একটি মামলা (নং-১৫০/২০০৯) দায়ের করেন। মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। সোহেল রানা পারভেজ আরও বলেন, সন্ত্রাসীরা বর্তমানেও একের পর এক হামলা চালিয়ে আমাদের পৈত্রিক সম্পত্তি জবর দখলের অপচেষ্টাসহ  আমার পরিবারের সম্মানহানীর চেষ্টা চালাচ্ছে। এ ঘটনায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাবিবুর রহমান বলেন, চকরিয়া পৌর সদরের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কোচপাড়া এলাকায় জমি জবর দখল চেষ্টা সংক্রান্ত একটি এজহার হাতে পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য থানার উপপরিদর্শক (এস আই) প্রিয়লাল ঘোষকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আহত, চকরিয়ায়
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 + 2 =

আরও পড়ুন