জমকালো আয়োজনে মানিকছড়িতে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন

fec-image

মানিকছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে ২০১৬ সাল থেকে উপজেলা ব্যাপী অনুষ্ঠিত হচ্ছে“বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্ট” এবার টুর্নামেন্টের ৪র্থ আসরের ফাইনাল খেলায় ছিল জমকালো আয়োজন। আর এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও বান্দরবান পার্বত্য জেলার ছয় ছয় বার নির্বাচিত সাংসদ বীর বাহাদুর উশেসিং।

বিশেষ অতিথি ছিলেন ৩ পার্বত্য জেলার মহিলা সাংসদ বাসন্তী চাকমা, গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ শাহরিয়ার জামান, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, সিন্দুকছড়ি জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল রুবায়েত মাহমুদ হাসিব, পিএসসি,জি, সহ জেলার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা।

৩১ ডিসেম্বর-২০১৯খ্রি. বিকাল সাড়ে ৩টায় উপজেলার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয় বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা। এ খেলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন উপজেলা ঐতিহ্যবাহী দু’টি ক্লাব যথাক্রমে মহামুনি সানফ্লাওয়ার একাদশ বনাম ময়ূরখীল সেতুবন্ধন একাদশ। সেতুবন্ধনে ৩ জন এবং সানফ্লাওয়ারে ২জন বিদেশী খেলোয়াড় অংশ নেয়।

খেলার প্রথমার্ধে ১-০ গোলে সানফ্লাওয়ার একাদশ এগিয়ে থাকলেও দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে সেতুবন্ধনের বিদেশী খেলোয়াড় শীলার একটি চমৎকার শুট থেকে সমতায় ফিরে আসে সেতুবন্ধন একাদশ। এরপর শত চেষ্টা করেও গোল ব্যবধান  আর বাড়াতে পারেনি। ফলে খেলা গড়ায় ট্রাইবেকারে। সেখানে ২-৩ গোলের ব্যবধানে সেতুবন্ধন একাদশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন।

খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশেসিং বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে আয়োজিত এ টুর্নামেন্টের সফল অগ্রযাত্রায় প্রমান করে মানিকছড়িবাসী ক্রীড়ামুদী। দর্শকদের উপস্থিতিতে প্রমাণ হয় পাহাড়ে সম্প্রীতির বন্ধন আজ ঘরে ঘরে বিদ্যমান।

মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে খেলাধূলার বিকল্প নেই উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, মাঠ হচ্ছে পবিত্র জায়গা যেখানে সকল সম্প্রদায়ের মানুষ একাকার হয়ে মিলে-মিশে খেলাধূলা উপভোগ করেন। আজ এখানকার মানুষ সেটিই দেখিয়ে দিয়েছে। তিনি এ টুর্নামেন্টের ধারাবাহিকতা কামনা করেন। পরে তিনি টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটিকে ২লক্ষ টাকা এবং চ্যাম্পিয়ন দলকে ২৫ হাজারম রানার আপ দলকে ২০ হাজার টাকা অনুদান ঘোষণা করেন।

বক্তব্য শেষে তিনি বিজয়ী এবং বিজিত দলকে যথাক্রমে প্রাইজমানী হিসেবে ৫০ হাজার ও ৩০ হাজার টাকাসহ ট্রপি ও মেডেল তুলে দেন। এছাড়া উক্ত টুর্নামেন্টে শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে মহামুনি সানফ্লাওয়ার একাদশের মো. রুবেল, কুমারী একাদশের চিচাউ মারমা ও রাজপাড়া একাদশের গোলকিপার উসাচিং চৌধুরীর হাতে ব্যক্তিগত ক্রেস্ট তুলে দেন। পরে অতিথিদের হাতে পুরস্কার ও সন্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটির নেতৃবৃন্দ।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twenty + twenty =

আরও পড়ুন