টেকনাফে মোটরবাইক চুরির হিড়িক, হোয়াইক্যংয়ে বাড়ছে অপরাধ প্রবণতা

fec-image

টেকনাফে অতি সম্প্রতি মোটরবাইক চুরির হিড়িক পড়েছে। বাদ পড়েনি সংবাদকর্মীর মোটরবাইকও। এ নিয়ে মোটরবাইক মালিকরা হতাশ ও ক্ষুদ্ধ। মোটরবাইক চোরের সিন্ডিকেট দল মাস দু’য়েকের মধ্যে প্রায় একডজন মোটরবাইক চুরি করেছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে হোয়াইক্যং ইউনিয়নে মোটরবাইকের সংখ্যা বেশি।

এরই প্রেক্ষিতে ১৭ আগস্ট রাত ৮ টার দিকে হোয়াইক্যং বাজারস্থ তানিয়া কোলিং কর্ণার থেকে আলোকিত উখিয়ার টেকনাফ প্রতিনিধি হারুনর রশিদ সিকদারের একটি মোটরবাইক চুরি করে পালিয়ে যায় চোরের সিন্ডিকেট দল। তার মোটর সাইকেলটি এফজেড ব্র্যান্ডের। যার নং ঢাকামেট্রো-ল-২৫-৭৯৬৪।

চুরি হয়ে যাওয়া মোটরবাইকের মালিক সন্ধানদাতাকে উপযুক্ত পুরস্কার দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে বলেন, প্রতিদিনের মতো ব্যবহৃত মোটরবাইকটি হোয়াইক্যং বাজারস্থ প্রমিত প্লাজার তানিয়া কোলিং কর্ণারের সামনে রাখা হয়। রাত ৮ টার দিকে শত শত লোককে ফাঁকি দিয়ে মোটরবাইকটি নিয়ে যায়। সিসি টিভিতে অজ্ঞাত দুই চোরের মধ্যে একজনের ছবি পরিস্কারভাবে দেখা যাচ্ছে। তবে এ চোরের দল এলাকার না হওয়ায় এখনো চিহ্নিত করা যায়নি। ইতোমধ্যে চোর ও মোটরবাইকের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে। কোন সুহৃদয়বান ব্যক্তিকে মোটর সাইকেল চোর বা সাইকেলটির সন্ধান পেলে সংবাদকর্মী হারুন সিকদারের ব্যবহৃত মুঠোফোনে (০১৮১৯৭২৫৮১৭) জানানোর জন্য বিশেষভাবে আহবান জানানো হয়েছে।

খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, বেশ কয়েকদিন আগে টেকনাফস্থ ২৬ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ক্যাম্প ইনচার্জের সহকারি আজিজুর রহমানের ব্লু রংয়ের ১৩৫ সিসির একটি ডিসকভার মোটরবাইক দিবালোকে চুরি হয়ে যায়। এ মোটরবাইকটি ক্যাম্প ইনচার্জের এরিয়াতে ছিল বলেও জানা গেছে। এ ছাড়া হোয়াইক্যংয়ের রশিদ মাইক সার্ভিসের সত্বাধিকারী মোঃ রশিদ এর ব্লু কালারের পালসার (ঢাকা মেট্রো ল-৩৩-১১৪৩), জুবাইরের একটি ফেজার, সাবেক ছাত্রদল নেতা গিয়াস উদ্দিনের সুজকি, দৈংগ্যাকাটা কিরণ চাকমার পালসার চুরি হয়।

এ ছাড়া চেকপোস্ট, তুলাতুলি সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে মোটর বাইক চুরি হওয়ার হিড়িক পড়েছে। চুরি হয়ে যাওয়া মোটরবাইকের মধ্যে একটিও উদ্ধার করা যায়নি। হোয়াইক্যং ইউনিয়ন উত্তর শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মাসুক শাহরিয়াদ জানান, যে হারে মোটর সাইকেল চুরি হচ্ছে তা নিয়ে আমরা শঙ্কিত রয়েছি। ১৭ আগস্ট রাতে মোটরবাইক চুরি হওয়ায় ঘটনাস্থল ও সিসি টিভির ফুটেজ সংগ্রহ করেছে হোয়াইক্যং ফাঁড়ির পুলিশ।

স্থানীয়রা বলেন, হোয়াইক্যংয়ে দিন দিন অপকর্ম বেড়েই যাচ্ছে। এর মধ্যে মাদকসেবি, জুয়াড়ী, চুরিসহ নানা অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এ সব দমনে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের তেমন ভুমিকা নেই। হোয়াইক্যং উত্তরপাড়া, ফরেস্ট অফিস, চেকপোস্ট সংলগ্ন বালুখালী পূর্বপাড়া হোয়াইক্যং পুলিশ ফাঁড়ির নাকের ডগায় আমতলী পাড়ায় মাদক সেবী, পাচার ও নিয়মিত জুয়ার আসর বসে।

এ সব আসরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো অভিযান নেই বলেও জানান এলাকাবাসী। হোয়াইক্যং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও কমিউনিটি পুলিশের সভাপতি হারুনর রশিদ সিকদার বলেন, মোটরবাইক চুরিসহ নানা অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পাওয়া দুঃখজনক। এ ব্যাপারে পুলিশের সমন্বয়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, যে কোনো অপরাধের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি যেসব স্থানে এসব কর্মকান্ড রয়েছে চিহ্নিত করে পুলিশকে খবর দিতে বলা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: টেকনাফ, মোটরবাইক চুরি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × 3 =

আরও পড়ুন