টেকনাফ-সেন্টমার্টিন সমুদ্র পথে চলছে প্রমোদতরী

fec-image

আবহাওয়া পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন সমুদ্র পথে চলছে প্রমোদতরীসমূহ।

সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকবাহী জাহাজ কেয়ারির কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ সিদ্দিকী জানান, সাগরে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত তুলে নেয়া হলে প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে মঙ্গলবার বেলা দেড়টার দিকে টেকনাফের নাফ নদের জেটি ঘাট থেকে পর্যটকদের নিয়ে কেয়ারি সিন্দাবাদসহ আরও পাঁচটি জাহাজ সেন্টমার্টিন দ্বীপের উদ্দেশে রওনা দেয়। পর্যটকবাহী জাহাজসমূহ নিরাপদে পৌঁছেছে।

ঘুর্ণিঝড় জাওয়াদের কারণে সেন্টমার্টিনে আটকে পড়া পর্যটকদের নিরাপদে ফিরে আনার ব্যাপারে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং টেকনাফের ইউএনও আন্তরিক সহযোগিতা করেছেন বলে জানান নুর মোহাম্মদ সিদ্দিকী।

টুয়াকের সাবেক সভাপতি ও বে অফ বেঙ্গল ট্যুরিজমের স্বত্তাধিকারী তোফায়েল আহমদ জানান, শান্ত আবহাওয়ায় পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। ৭ ডিসেম্বর কর্ণফুলি, সুকান্ত, পারিজাত সেন্টমার্টিন গিয়েছে। পর্যটক সেবায় তারা বদ্ধপরিকর।

একইভাবে কক্সবাজারের নুনিয়ারছড়া বিআইডব্লিউটিএর ঘাট থেকে পর্যটকদের নিয়ে কর্ণফুলী জাহাজ সেন্টমার্টিন দ্বীপের উদ্দেশে ছেড়ে যায় বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের কারণে কক্সবাজার সমুদ্র উপকূলে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত জারি হলে গত রোববার ও সোমবার কক্সবাজার ও টেকনাফের সঙ্গে সেন্টমার্টিন দ্বীপে সমুদ্র পথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে প্রশাসন। সে কারণে টেকনাফে ফিরতে পারেনি সহস্রাধিক পর্যটক। জাহাজ চলাচল স্বাভাবিক হওয়ায় সেন্টমার্টিন দ্বীপে আটকে পড়া পর্যটকরা গন্তব্যে ফিরে যায়।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় কেটে যাওয়ায় মঙ্গলবার দুপুরে আবহাওয়া অফিস তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত তুলে নেয়। সাগরে আবহাওয়া পরিস্থিতিরও উন্নতি হওয়ার প্রশাসন সেন্টমার্টিন দ্বীপে সমুদ্র পথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলে অনুমতি দেয়।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পারভেজ চৌধুরী জানান, ঘূর্ণিঝড় কেটে গেছে। তাই সাগরে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত তুলে নেয়া হয়েছে। তাই সেন্টমার্টিন দ্বীপের সঙ্গে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলে আর বাধা নেই।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 + 9 =

আরও পড়ুন