রাজস্থলী থানায় ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

তুইনুমং হত্যায় জেএসএস দায়ী: অভিযোগ পরিবারের

fec-image

রাঙ্গামাটির রাজস্থলী উপজেলায় গোলাগুলিতে নিহত তুইনুমং মারমার পরিবার জেএসএস(সন্তু)কে দায়ী করে এজাহারে ২৩ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ১০/১৫ জন অজ্ঞাত নামায় মামলা করেছে রাজস্থলী থানায়।

২০ নভেম্বর (শুক্রবার) রাত ৮টায় উপজেলার পৌয়তু ও ম্রো পাড়ার মধ্যবর্তী স্থানে গোলাগুলির ঘটনায় তুইনুমং মারমা গুলিবিদ্ধ হলে তাকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়ার জন্য চট্রগ্রাম মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করানো হয়। দু’দিন পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। ময়না তদন্তের পর তার মরদেহ পরিবারকে হস্তান্তর করে পুলিশ।

সৎকার করার পর তার পরিবার রাজস্থলী থানায় এজাহারের মাধ্যমে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১/২৬/২০২০ ধারা, ৩০২/৩৪/১০৯ দণ্ডবিধি।

এ বিষয়ে রাজস্থলী থানা অফিসার ইনচার্জ মফজল আহামদ খান জানান, নিহত তুইনুমং মারমার পরিবার বাদী হয়ে পার্বত্য চট্রগ্রাম জনসংহতি সমিতি( জেএসএস)কে দায়ী করে এ মামলা দায়ের করেন। এ মামলা তদন্তের দায়িত্বে আছেন এসআই আবদুল মজিদ, আসামীদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত আছে বলেও জানান ওসি।

লিখিত এজাহারে নিহতের মা ওয়াংচিং মারমা উল্লেখ করেন, আমার ছেলে তুইনুমং মারমা পিতা: মংবাই মারমা থানা রাজস্থলী, জেলা রাঙামাটি। সে জুম চাষ করে জীবন যাপন করতো। আমার স্বামীও একজন জুম চাষী। আমার ছেলে তুইনুমং মারমা জেএসএস (সন্তু) সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজীর বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিল। তাই জেএসএস সন্ত্রাসীরা তার বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ ছিল। সেই কারণে নিম্নবর্ণিত ১-১০নং আসামীদের পরিকল্পনায় ও নির্দেশনায় এবং ১১-২৩ নম্বর আসামীদের সহযোগিতায় অজ্ঞতনামা আরও ১০-১৫ জন জেএসএস সশস্ত্র সন্ত্রাসী অনুমান ৬.৩০টার সময় পাহাড়ি কাঠ সংগ্রহ করে বাড়ি ফেরার সময় পাইন্দং পাড়ার মাঝামাঝি জনবসতি শূন্য এলাকায় আমার ছেলেকে একা পেয়ে ব্রাশফায়ার করে চলে যায়। সংবাদ পেয়ে পরের দিন ২১/১১/২০২০ তারিখে সকাল বেলা আমার ছেলেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় এলাকার লোকজন চট্টগ্রাম মেডিকেলে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় গত ২২/১১/২০২০ সকাল ৯.৩০টার দিকে মারা যায়। চট্টগ্রাম মেডিকেলের মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে ধর্মীয় রীতি অনুসারে আমার ছেলের সৎকার করা হয়। সৎকার শেষে আমার আত্মীয় স্বজনের সাথে আলোচনা করে এজাহার দায়ের করলাম। এমতবস্থায় ১-১০নং আসামীদের পরিকল্পনায় ও নির্দেশনায় এবং ১১-২৩ নম্বর আসামীদের সহযোগিতায় অজ্ঞতনামা ১০-১৫ জন জেএসএস সশস্ত্র সন্ত্রাসী কর্তৃক আমার ছেলেকে ব্রাশফায়ার করে হত্যার বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি। আমার ছেলের সৎকার শেষে আত্মীয় স্বজনের সাথে আলোচনা করার জন্য এজাহার দায়ের করতে বিলম্ব হলো।।

এজাহারে উল্লেখিত আসামীরা হলেন-

১. চিরঞ্জীৎ তঞ্চাঙ্গ্যা(৩০) পিতা অজ্ঞত, গ্রাম-টাওয়ার পাড়া, রাজস্থলী। ২. সুইসাপ্রু মারমা(৪০) পিতা- উসা মারমা, সাবেক মেম্বার, গ্রাম ডংনালা, চন্দ্রঘোনা।৩. হারমনি তঞ্চাঙ্গ্যা(২৮) , পিতা অজ্ঞত, গ্রাম-ঘিলামুখ। ৪. জগদিশ তঞ্চাঙ্গ্যা (৩০), পিতা অজ্ঞত, গ্রাম-হেডম্যান পাড়া। ৫. জ্যোতি তঞ্চাঙ্গ্যা, পিতা অজ্ঞত, গ্রাম-মাগাই পাড়া। ৬. দিনুকুমার তঞ্চাঙ্গ্যা, পিতা অজ্ঞত। ৭. ক্যবুচিং মারমা, পিতা অজ্ঞত গ্রাম নারানগিড়ি বড় পাড়া, থানা চন্দ্রঘোনা। ৮. সুজন তঞ্চাঙ্গ্যা(২৮) পিতা অজ্ঞত, গ্রাম- মাগাইন পাড়া। ৯. কাজল তঞ্চাঙ্গ্যা (২৭), পিতা অজ্ঞত, গ্রাম-ঘিলামুখ। ১০. সুচিং মারমা (২৭), পিতা অজ্ঞত, নোয়া পাড়া রাজস্থলী। ১১. খ্যাইসা অং মারমা(৫৫) বর্মতান চেয়ারম্যান চিৎমরম ইউপি, পিতা অজ্ঞত। ১২.সিংথোয়াই মারমা(৫০) বর্তমান মেম্বার, পিতা খিজা মারমা। ১৩. থোয়াই সো প্রু চৌধুরী৥ রুবেল(৪৮), পিতা মৃত অংথোয়াই চিং চৌধুরী। ১৪. আজাই মং মারমা(৪০),পিতা অজ্ঞত। ১৫. থোয়াইঅং প্রু মারমা (৪৮), পিতা য়ং প্রু মারমা। ১৬. বিক্রম মারমা(৪৮), পিতা অজ্ঞত, মিশন এলাকা কাপ্তাই। ১৭. আনু মং মারমা(৪৫), পিতা- মৃত মংসুইউ সওদাগর। ১৮. আলুমং মারমা খইয়া (৪৫), পিতা- মৃত আম্মে(খুরশীদ খান)। ১৯. ক্যসুই মারমা(৫০), পিতা আমুইয়ং মারমা গ্রাম কাকড়াছড়ি। ২০. প্রুসি মং মারমা(৩৫), পিতা অজ্ঞত। ২১. ক্যসুই প্রু মারমা(৫০), পিতা সুইহ্লা প্রু মারমা, রাঙ্গালহালিয়া। ২২. নির্মল মারমা(নিং মং মারমা)(৫০), পিতা-মৃত সাজাই হেডম্যান। ২৩.রক্সিম মং মারমা(৪০), পিতা মেমং মারমা, কারিগর পাড়া চন্দ্রঘোনা। এছাড়া আরও অজ্ঞত ১০/১৫ জন জেএসএস (সন্তু) সশস্ত্র সন্ত্রশীদের এজাহারে  উল্লেখ করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 2 =

আরও পড়ুন