“টাকার জন্য অপহরণ করে তার ঘাড়ে দা দিয়ে আঘাত করে হত্যা”

থানচিতে ফেরিওয়ালার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

fec-image

বান্দরবানের থানচিতে এক ফেরিওয়ালা নিখোঁজের একমাস পর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্ধার হওয়া ওই ফেরিওয়ালার নাম মো. আইয়ুব (৫৫)। তিনি চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া উপজেলার পশ্চিম কলাউজানের মৃত গোলাম সুবহানের ছেলে।

সোমবার (৩জুন) সকালে থানচি চমিপাড়া পাহাড়ি ঝিরি থেকে তার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় আটক দুই যুবকের নাম হলো চাই অং পা ম্রো (৩০) ও তাইরো ম্রো(২৪)।

জানা গেছে, মো. আইয়ুব বেশ কয়েক বছর ধরে থানচি উপজেলায় ফেরিওয়ালা হিসেবে নিজের জীবিকা চালিয়ে আসছিল। গত ১২মে মো. আইয়ুব সর্বশেষ তার বাড়িতে মোবাইলে কথা বলে। এরপর থেকে তার ব্যবহৃত ফোন বন্ধ পেয়ে পরিবারের লোকজন বিভিন্ন স্থানে খুঁজাখুঁজির পর লোহাগাড়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। ওই জিডির পর মোবাইলের কল লিস্ট যাচাই করে মো. আইয়ুবের সর্বশেষ অবস্থান থানচি এলাকার চমিপাড়ায় দেখা যায়। এরপর গত ৩০ মে আইয়ুবের ভাই আক্কাস আলী থানচি থানায় একটি জিডি করেন।

এই জিডির পর গত ২জুন বিকালে থানচি বাজার থেকে সন্দেহভাজন চাই অং ম্রো ও তাইরো ম্রো নামে দুইজনকে আটক করে পুলিশ। তাদের জিঙ্গাসাবাদে মো. আইয়ুবকে টাকার জন্য অপহরণ করে তার ঘাড়ে দা দিয়ে আঘাত করে হত্যা করেছে বলে তারা স্বীকার করে।

এরপর সোমবার আটককৃত ওই দুই ঘাতককে নিয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল চমিপড়া পাহাড়ি ঝিরি থেকে মো. আইয়ুবের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

থানচি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জোবায়রুল হক জানান, গত ১২মে আইয়ুব ম্রো সম্প্রদায়ের একটি উৎসবে মালামাল বিক্রি করেন। পরে ১৪ মে থেকে তার আর কোনো খোঁজ পাচ্ছিল না পরিবারের সদস্যরা।

তিনি আরও জানান, তার ভাই আক্কাস থানচি থানায় নিখোঁজের অভিযোগ দেয়ার পর পুলিশ সন্দেহভাজন দুজনকে আটক করে। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার সকালে চমি পাড়ার কাছে পাহাড়ি একটি ঝিরি থেকে নিহত ফেরিওয়ালার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: অর্ধগলিত, থানচিতে, ফেরিওয়ালার
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × four =

আরও পড়ুন