দু’লক্ষ টাকার অভাবে পা হারাতে যাচ্ছে পানছড়ির কুদ্দুস

fec-image

মাত্র দু’লক্ষ টাকার অভাবে ডান পা হারাতে যাচ্ছে শ্রমিক আ: কুদ্দুস। উপজেলার আইয়ুব আলী মেম্বার পাড়া গ্রামের মো: সাবু মিয়া ও ছকিনা বেগমের ছেলে কুদ্দুসের বয়স এখন পঁয়ত্রিশ। দিন মজুরী করেই দুই ছেলে শাকিল, রাকিব, মেয়ে শানজিদা ও স্ত্রীকে নিয়ে কোন রকম তাদের দিনাতিপাত।

প্রায় মাস তিনেক আগে নিজ এলাকায় কাজ করার সময় পায়ে বিষাক্ত কিছু লেগে চুলকানি থেকে শুরু হয় পচন ধরা। খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসা নিলেও দিন দিন পায়ের অবস্থা খারাপের দিকে যেতে থাকে। এরই মাঝে সহায় সম্বল বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকাও খরচ করেছে। এক আত্মীয়র হাত ধরে কুমিল্লা ট্রমা হাসপাতালে সে এখন চিকিৎসাধীন। বর্তমানে টাকার অভাবে পায়ে ড্রেসিং
ছাড়া আর কোন চিকিৎসা নিতে পারছেনা। তার বয়ো:বৃদ্ধ বাবা-মায়ের আকুতি দুই লক্ষ টাকা হলেই ছেলের পায়ের চিকিৎসা সম্ভব। কান্নাজড়িত কন্ঠে তারা সকলের কাছে দু’এক টাকা করে সহযোগিতার কথা জানালেন। বিছানায় যন্ত্রনায় ছটফটানো কুদ্দুস বলেন, দুই লক্ষ টাকা হলেই তার চিকিৎসা সম্ভব। তার তিনটি ছেলেমেয়ের দিকে তাকিয়ে তাকে বাঁচিয়ে তোলার আকুতি জানায়। তার ব্যক্তিগত বিকাশ নাম্বার ০১৮৪৯২০৭০৯৯।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আমিরুল বশর জানান, তার প্রাথমিক চিকিৎসায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিজয় কুমার দেব, ইউপি চেয়ারম্যান মো: নাজির হোসেন, ফার্নিচার দোকানদার রাশেদ ও আমি নিজেই অর্থনৈতিক সহযোগিতা দিয়েছি। তবে এই অসহায় লোকটিকে সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে সুস্থ করে তোলার আহবান জানান তিনি। এদিকে বিদ্যালয় ও কলেজ পড়ুয়া জয়নাল, হাবিব, রহমান, বৃষ্টি, জান্নাতুল, কামরুল, শাহানাজ, রাজমিন, শামসুন্নাহার, শরীফ, আমিন, আনোয়ার, শামিম, সাইফুল ও শাহিন এই পরিবারটিকে বাঁচাতে মাঠে কাজ করবে বলে এই প্রতিবেদককে জানান। মানবিক সহযোগিতার হাত বাড়াতে সবাইকে আহবান জানিয়েছে তারা।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: খাগড়াছড়ি, পানছড়ি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 + 14 =

আরও পড়ুন