নাইক্ষ্যংছড়িতে অপহৃতদের খোঁজ মেলেনি এখনও

Untitled-1

নিজস্ব প্রতিবেদক:

অপহরণের ২১ ঘণ্টা পরও বান্দরবানের বাইশারি কৃষি ব্যাংকের ক্যাশিয়ার জীতেন্দ্র কিশোর দেবসহ অপহৃত তিনজনের খোঁজ মেলেনি। সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় ঈদগড়-বাইশারি সড়কের ব্যাঙডোবা এলাকায় অস্ত্রের মুখে যাত্রীবাহী মিনিবাস থামিয়ে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের বাইশারি শাখার ক্যাশিয়ার জীতেন্দ্র কিশোর দেবসহ তিনজনকে অপহরণ করে সন্ত্রাসীরা।

 

অপহরণকারীরা এখনো অপহৃতদের পরিবারের কাছ থেকে কোনো মুক্তিপণ চায়নি। যৌথ অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে পুলিশ প্রশাসন। অপহৃত তিনজনের মধ্যে ব্যাংকের ক্যশিয়ার জীতেন্দ্র কিশোর দেব এবং ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালক মাহববুবুর রহমান সেলিমের পরিচয় জানা গেলেও অপরজনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। ঘটনার পরপরই পুলিশ ও নাইক্ষ্যংছড়িতে দায়িত্বরত বিজিবি’র ৩১নং ব্যাটালিয়নের জওয়ানরা উদ্ধার অভিযান শুরু করে।

ব্যাটেলিয়ন কমান্ডার লে. কর্নেল শফিকুর রহমান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, অপহৃতদের অবস্থান সম্পর্কে তারা প্রায় নিশ্চিত হয়েছেন। তবে কি কারণে এবং কারা তাদের অপহরণ করেছে- সে বিষয়ে পুলিশ বা অপহৃতদের আত্মীয়-স্বজনরা কোন তথ্য জানাতে পারেননি।

বান্দরবান পুলিশ সুপার দেবদাশ ভট্টাচার্য্য জানান, অপহৃত এলাকাটি বান্দরবান ও কক্সবাজার সীমানার মধ্যবর্তী এলাকা। মিয়ানমার ও বাইশারী এলাকার সন্ত্রাসীরা যৌথ ভাবে অপহরনের কাজটি করেছে। কক্সবাজার ও বান্দরবানের পুলিশ যৌথ ভাবে অপারেশনের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

নাইক্ষ্যংছড়ির স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ এ অঞ্চলে ডাকাতি-অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনা অব্যাহত রয়েছে। বেশীর ভাগ অপহরনের ঘটনা ঘটছে বাইশারী এলাকার খাস জমি নিয়ে। বাইশারির বড় বড় রাবার বাগানের মালিকদের ইন্দনে অপহরণ-ডাকাতিরমত পরিকল্পিত বিভিন্ন ঘটনা ঘটানোর অভিযোগ এলাকার সচেতন মহলের। বিভিন্ন ঘটনার ধারাবাহিকতায় এবারও মুক্তিপণের জন্যেই তাদের অপহরণ করা হতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

ইদগড় পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. ফিরোজ জানান, সি লাইন পরিবহনের একটি ছোট বাস রাত সাড়ে ৮টার দিকে তিনজন যাত্রী নিয়ে ইদগড় বাজার থেকে বাইশারী আসার পথে ব্যাঙ্গ ডোবা এলাকায় পৌঁছালে সেখানে ওত পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা গাড়ির গতিরোধ করে তিনজনকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। দুর্বৃত্তরা ডাকাত হয়ে থাকতে পারে বলে পুলিশ ধারণা করছে। বাসের চালক পুলিশকে জানিয়েছেন দুর্বৃত্তরা হঠাৎ গাড়ির গতিরোধ করে তিনজন যাত্রীকে বেঁধে জঙ্গলের দিকে নিয়ে যায়।

বাইশারী পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ আনিসুর রহমান জানান, রাত ৮টার দিকে অজ্ঞাত স্থান থেকে এক মহিলা ফোনে তাকে জানিয়েছেন ব্যাঙ্গ ডোবা এলাকার জঙ্গলে একদল ডাকাত জড়ো হয়েছে। তিনি বিষয়টি ইদগড় পুলিশকে জানিয়েছেন। ব্যাঙ্গ ডোবা স্থানটিতে প্রায় সময় ডাকাতির ঘটনা ঘটে থাকে বলে পুলিশ জানিয়েছে। বাইশারী ইদগড় সড়কে ডাকাতির ঘটনা বেশি হওয়ায় পুলিশ টহল দিলেও রাত ৮টার পর কোনো টহল থাকে না। গাড়ির চালকদের মানা করা সত্ত্বেও তারা ঝুঁকি নিয়ে যাত্রী পরিবহন করে থাকে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এদিকে, অপহৃত সেলিমের স্ত্রী শাহানা বেগম জানান, মঙ্গলবার সকালে মোবাইল ফোন করে সেলিম তাকে জানিয়েছে, তারা তিনজনই একই ঘরে আটক রয়েছেন এবং ভালো আছেন। তবে কি কারণে তাদের অপহরণ করা হয়েছে- সে বিষয়ে কোন তথ্য জানাননি তিনি।

ব্যাংকের বাইশারি শাখা ব্যবস্থাপক অসীম বড়ুয়া জানান, একদিনের ছুটি নিয়ে জীতেন্দ্র কিশোর দেব রবিবার বাড়ি যান। অফিসে ফেরার পথে অন্য দু’জনের সঙ্গে তিনিও অপহৃত হন।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: অপহরণ, অপহৃত, বান্দরবান
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

twenty + 16 =

আরও পড়ুন