নিখোঁজ এমপি আনারের মরদেহ উদ্ধার কলকাতায়

fec-image

ভারতে গিয়ে নিখোঁজ বাংলাদেশের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার (২২ মে) সকালে কলকাতার নিউটাউন এলাকার সঞ্জিভা গার্ডেন থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ সময় ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

ভারতীয় গণমাধ্যমে এ খবর দেওয়া হয়েছে।

তবে তাকে হত্যা করা হয়েছে কি না সে বিষয়ে এখনও নিশ্চিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

বাংলাদেশের একটি গোয়েন্দা সূত্র জানায়, এমপি আজীম একা ভারতে গেছেন বলে শুরু থেকে প্রচার করা হলেও আসলে তার সঙ্গে আরও দু’জন ছিলেন। তারাও বাংলাদেশি বলে এখন পর্যন্ত তথ্য মিলেছে। সিসিটিভি ক্যামেরার কিছু ফুটেজে ভারতীয় গোয়েন্দারা এমন তথ্য পেয়েছেন। ওই দুই ব্যক্তি এমপি আজীমের দীর্ঘদিনের পরিচিত। তাদের বাড়ি এমপির এলাকায় বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গত ১৬ মে থেকে সংসদ সদস্যের সঙ্গে স্বজনদের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। তাঁর মোবাইল ফোনে স্বজনেরা যোগাযোগ করতে পারছিলেন না।

মঙ্গলবার (২১ মে) রাত ৯টা পর্যন্ত কোনো সন্ধান না পাওয়ায় উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন পরিবারের সদস্য, শুভাকাঙ্ক্ষী ও রাজনৈতিক নেতা-কর্মীরা। তবে তাঁকে খুঁজে পেতে দুই দেশের প্রশাসন তৎপর হয়ে ওঠে।

আনোয়ারুল আজিমের ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) আবদুর রউফ বলেন, ১২ মে সংসদ সদস্য চিকিৎসার জন্য দর্শনা সীমান্ত দিয়ে ভারতে যান। প্রথমে পশ্চিমবঙ্গে বরাহনগর থানার মণ্ডলপাড়া লেনে গোপাল বিশ্বাস নামের পরিচিত এক ব্যক্তির বাড়িতে ওঠেন। পরের দিন ১৩ মে ডাক্তার দেখানোর জন্য বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। ১৫ মে বরাহনগরের বাসিন্দা গোপাল বিশ্বাসের হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে বার্তা পাঠান, তিনি দিল্লি যাচ্ছেন। ১৬ মে সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত গাড়িচালক তরিকুল ইসলামের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনেও একটি খুদে বার্তা পাঠিয়ে জানান দিল্লি যাওয়ার কথা। এরপর থেকে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে যান তিনি।

আনোয়ারুল আজিমের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না পেরে ১৮ মে থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি করেন সংসদ সদস্যের পরিচিত ভারতের বরাহনগরের বাসিন্দা গোপাল বিশ্বাস।

কালীগঞ্জ পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলাম বলেন, মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস সোমবার ভিসার জন্য ভারতীয় দূতাবাসে কাগজপত্র জমা দেন। মঙ্গলবারও ভিসা না পাওয়ায় মুমতারিন বাবার খোঁজে ভারতে যেতে পারেননি।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: আজকের ব্রেকিং নিউজ, বাংলাদেশ, ভারত
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন