‘নির্বাচনে যারা সহিংসতা সৃষ্টির চেষ্টা করবে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না’

fec-image

আগামী ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ৮ ইউপি নির্বাচন হবে সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, গ্রহণযোগ্য ও শান্তিপূর্ণ। এই নির্বাচনে কোন পেশীশক্তি, অস্ত্রবাজ, সন্ত্রাসীকে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। নির্বাচনকে শতভাগ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সার্বক্ষণিক ভাবে মাঠে কাজ করবে। নির্বাচনে যারা সহিংসতা সৃষ্টির চেষ্টা করবে সে যতো বড়ই শক্তিশালী হোক কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

ভোট কেন্দ্রে গোলযোগ সৃষ্টির পায়তারা করবে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রতিটি কেন্দ্রের বাইরে এবং ভেতরে কয়েকস্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আগে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী এবং ভোটারদের চাওয়া অনুসারেই ৮ ইউপি নির্বাচন হবে অতীতের মতো শতভাগ সুষ্ঠু। এজন্য তিনি সকল প্রার্থী ও সর্বমহলের আন্তরিক সহায়তা কামনা করেন।

বুধবার (১৫ ডিসেম্বর) সকালে চকরিয়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে অনুষ্ঠিত চকরিয়া ইউপি নির্বাচন-২০২১ উপলক্ষে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী প্রার্থীদের সাথে আইন-শৃঙ্খলা বিষয়ক মতবিনিময় সভায় উপস্থিত বিভিন্ন পদের প্রার্থীর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক (জেলা ম্যাজিস্ট্রেট) মো. মামুনুর রশীদ উপরোক্ত কথা গুলো বলেন।

চকরিয়া ইউপি নির্বাচনের প্রধান সমন্বয়ক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ শামসুল তাবরীজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য দেন কক্সবাজার পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান, সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার (চকরিয়া সার্কেল) তফিকুল আলম, চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ ওসমান গনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. রাহাত উজ-জামান, নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা, ডিজিএফআই, এনএসআই এর প্রতিনিধি।

সভার শুরুতে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে চকরিয়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো.শহিদুল ইসলাম আচরণবিধি সংক্রান্ত ডকুমেন্টারী প্রদর্শন করেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আট ইউপি নির্বাচনের চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী প্রার্থী ও সাধারণ ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্ধিতায় থাকা মেম্বার প্রার্থী এবং স্থানীয় মূলধারার গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বলেন, নির্বাচন চলাকালীন ভোটকেন্দ্র এবং বাইরে যাতে কোন প্রার্থী বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে নজর দিতে হবে। এছাড়াও বৈধ অস্ত্র জমা নেওয়ার পাশাপাশি অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের মাধ্যমে আগামী ইউপি নির্বাচনকে একটি শতভাগ সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দেয়ার আশা করছেন প্রার্থীরা। সভায় বিভিন্ন বিষয়ে বক্তব্যে চেয়ারম্যান প্রার্থীরা আরও অভিযোগ করেন, প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী তাদের কর্মীকে হুমকি দিচ্ছেন নির্বাচনী মাঠ থেকে সরে দাঁড়াতে। রাতের আঁধারে বাড়ি বাড়ি গিয়েও হুমকি দিচ্ছেন।

কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান বলেন, সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ, গ্রহণযোগ্য ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দিতে ভোটকেন্দ্রগুলোতে কঠোর ভাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে, কোন ধরণের ফাঁক-ফোকর রাখা হবে না। অবৈধ অস্ত্রধারী-সন্ত্রাসীদের ধরতে ব্লক রেইড কার্যক্রম শুরু করবে পুলিশ। তবে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কেউ বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়ালে তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা হবে।
তিনি আরও বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ উপহার দিতে নির্বাচনের দিন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি, আনসারসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রয়োজনীয় সংখ্যক সদস্য মোতায়েন থাকবে নির্বাচনী মাঠে।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × two =

আরও পড়ুন