পাকুয়াখালী হত্যাকান্ডের ২৩ বছর: খাগড়াছড়িতে বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদের বিক্ষোভ

fec-image

দীর্ঘ ২৩ বছরেও রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলার পাকুয়াখালীতে ৩৫ বাঙ্গালি কাঠুরিয়াকে হত্যার বিচার না হওয়ার প্রতিবাদে খাগড়াছড়িতে বিক্ষোভ করেছে পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদ।

সোমবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে শান্তিবাহিনীর তৎকালীন প্রধান সন্তু লারমাসহ হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শাপলা চত্বরে এসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে পাকুয়াখালী হত্যাকান্ডের ঘটনায় প্রাণে রক্ষা পাওয়া কাঠুরিয়া মো. ইউনুছ ও প্রত্যক্ষদর্শী মো. হাকিম, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি আব্দুল মজিদ ও খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি আসাদ উল্লাহ আসাদ অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, সরকার দীর্ঘ ২৩ বছরেও নিরহ ৩৫ কাঠুরিয়াকে হত্যার বিচার না করে কথিত শান্তিবাহিনীর সন্ত্রাসীদের পুনর্বাসন করেছে। অবিলম্বে হত্যাকারীদের প্রধান সন্তু লারমাসহ অন্যান্যদের বিচারের আওতায় আনা না হলে কঠোর কর্মসূচি দেয়ার হুঁশিয়ারি দেয় বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের নেতাকর্মীরা।

বক্তারা অভিযোগ করেন, ১৯৯৬ সালের ৯ সেপ্টেম্বর রাঙ্গামাটির পাকুয়াখালীতে ৩৫জন কাঠুরিয়াকে ডেকে নিয়ে শান্তিবাহিনীর সদস্যরা নির্মমভাবে হত্যা করে। যাদের মধ্যে ২৮ জনের মরদেহ খুঁজে পাওয়া গেলেও ৭ কাঠুরিয়ার মরদেহ খুঁজে পাওয়া যায়নি। দীর্ঘ ২৩ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো এই ঘটনার বিচার পায়নি স্বজনরা। বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে পাহাড়ে খুন, অপহরণ, চাঁদাবাজি বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছেনা। তাই পাকুয়াখালী গনহত্যাসহ সকল হত্যাকান্ডের তদন্ত করে বিচার প্রক্রিয়া শুরু করাসহ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানানো হয়।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × one =

আরও পড়ুন