পানছড়িতে দেবে যাচ্ছে মাটি, ঝুঁকির মুখে বৈশাখ কুমার পাড়ার ফসলি মাঠ

fec-image

খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলার ৩ নং পানছড়ি ইউপির ২ নং ওয়ার্ডের বৈশাখ কুমার পাড়া (তিরপাবিল) এলাকায় রয়েছে বিশালাকার ধানের মাঠ। প্রায় ৩০ একরের অধিক এলাকাজুড়ে বিশালাকার এই ধানের মাঠটি উপজেলার শষ্য ভান্ডার হিসেবেও বেশ পরিচিত। আউশ, আমন ও বোরো মৌসুমে সবুজ ধানের চারাগুলো দক্ষিণা হাওয়ায় দোল খাওয়ার দৃশ্য এক নজরে মন কেড়ে নেয়।

উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্যমতে মৌসুমে আনুমানিক ১৬৫ মে: টন ধান এই মাঠ থেকে উৎপাদন হয়। সম্প্রতি জমিনের মাঝ বরাবর বিশালাকার এলাকাজুড়ে মাটি নিচের দিকে দেবে যাচ্ছে। স্থানীয় ইউপি সদস্য ইন্দ্রজিত ত্রিপুরা জানান, এক সময়ে একটি ছোট গর্ত দেখা গিয়েছিল। সেই গর্তটি বর্তমানে অর্ধ একরের অধিক জায়গা জুড়ে জমিন থেকে প্রায় ১০-১২ ফুট নিচে দেবে গেছে। যার ফলে এলাকার কৃষকের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে ভীতিকর অবস্থা।

এলাকার মুরুব্বী সাবেক পানছড়ি ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সারণ কুমার চাকমা, নিত্য রঞ্জন ত্রিপুরা, প্রদীপ দত্ত চাকমা, মনজ্যোতি ত্রিপুরা জানান, এই সমস্যার সমাধান সরকারিভাবে ছাড়া কারো পক্ষে সম্ভব না। সকলে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছেন।

পানছড়ি উপজেলা কৃষি অফিসার মো. নাজমুল ইসলাম মজুমদার জানান, কৃষক বা এলাকাবাসী এ ব্যাপারে আমাদের কখনো কিছুই জানায়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে জায়গাটির নিচে হয়তো ছোট সুড়ঙ্গ রয়েছে। যা পানি যেতে যেতে তলদেশে ক্ষয় হয়ে নিচে দেবে গেছে। কৃষি অফিস মূলত সার, বীজ সরবরাহ নিশ্চিত করাসহ কৃষকের প্রোডাকশন নিশ্চিত করে। পানি উন্নয়ন বোর্ড বা বিএডিসি এ সমস্যার সমাধান দিতে পারে বলে তিনি ধারণা করছেন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × one =

আরও পড়ুন