পার্বত্য চট্টগ্রামের চাঁদাবাজিকে বড় করে দেখানো হয়: ঊষাতন তালুকদার

fec-image

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সহ-সভাপতি ও সাবেক এমপি ঊষাতন তালুকদার বলেছেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে চাঁদাবাজি অস্ত্রবাজি রয়েছে। সমতলের কিংবা সারাদেশে কোটি কোটি টাকার চাঁদাবাজি হয়। কিন্তু ঐসব নিয়ে সরকারের মাথা ব্যাথা নেই। চাঁদাবাজি শুধু পার্বত্য অঞ্চলে হয় না, সারাদেশেই হয়। এর মধ্যে পার্বত্য অঞ্চলের চাঁদাবাজিকে বড় করে দেখা হয়। কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রামে চাঁদাবাজি কেন হয়, সরকারকে অনুধাবন করতে হবে এবং তা গুরুত্ব সহকারে দেখার অনুরোধ জানান তিনি।

রবিবার (১০ নভেম্বর) সকালে ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নসহ জুম্ম জাতির অস্তিত্ব সুরক্ষায় এগিয়ে আসুন” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে রাঙ্গামাটি জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সম্মেলন কক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি উদ্যোগে আয়োজিত মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ৩৬তম মৃত্যু বার্ষিকী ও স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, অনেকই বলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম তথা রাঙ্গামাটি পর্যটন শিল্পের জন্য সম্ভাবনাময় অঞ্চল। বান্দরবান ও খাগড়াছড়িতে পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটলেও রাঙ্গামাটিতে বিকাশ ঘটেনি। এর কারণ পার্বত্য চট্টগ্রাম সমস্যার সমাধান না করা। পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা সমাধান না করলে এই অঞ্চল সম্ভাবনাময় গড়ে তোলা অসম্ভব। পার্বত্য চট্টগ্রামের সমস্যা সমাধান করার জন্য আহ্বান জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ভূমিকা রয়েছে। কিন্তু পার্বত্য অঞ্চলের বর্তমান বিরাজমান পরিস্থিতিতে লক্ষ্য করা যায়। পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ ও জেলা পরিষদ এর কোন প্রতিনিধি মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা জন্মবার্ষিকী কিংবা মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসেন না। এটি খুবই দুঃখজনক।

এ সময় স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য গৌতম কুমার চাকমা, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মংসানু চৌধুরী, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম, চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি প্রকৃত রঞ্জন চাকমা, এমএন লারমা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক বিজয় কেতন চাকমা, শিক্ষাবিদ, লেখক ও সাংস্কৃতিক কর্মী শিশির চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সহ-সভাপতি সুমন মারমা প্রমুখ।

এর আগে প্রভাতফেরি ও মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন দলীয় নেতাকর্মীরা।

সভার শুরুতে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস), রাঙ্গামাটি জেলা শাখার তথ্য ও প্রচার সম্পাদক নগেন্দ্র চাকমা শোক প্রস্তাব পাঠ করেন।

Print Friendly, PDF & Email
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 + six =

আরও পড়ুন