পাহাড়ের শিল্পীদের সংস্কৃতি বিকাশে এগিয়ে আসতে হবে : বান্দরবানে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

fec-image

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি বলেছেন, পাহাড়ে সংষ্কৃতির বৈচিত্র রয়েছে। তাই সম্ভাবনাময় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সংস্কৃতির বিকাশে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি দরকার। সরকারের পাশাপাশি সবার উচিত পাহাড়ের এসব শিল্পীদের সংস্কৃতি বিকাশে এগিয়ে আসা।

বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) সকাল ১১টায় বান্দরবান ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ইনষ্টিটিউট আয়োজিত অনলাইন প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠানে এই কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী। ১১টি ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর সম্মিলনে আয়োজিত অনলাইন ভিত্তিক ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন- করোনাকালীন সম্মুখ যোদ্ধাদের পাশাপাশি এই মহামারির সাথে লড়তে হয়েছে শিল্পী ও সংস্কৃতিকর্মীদের। এরপরও শিল্পীরা মানুষের মনোবল সুদৃঢ় করার জন্য অবদান রেখেছে। প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী ও বিচক্ষণ নেতৃত্বের কারণে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় প্রতিমন্ত্রী বান্দরবান ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনষ্টিউটে রক্ষিত উপজাতীদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের সামগ্রী পরিদর্শন এবং বঙ্গবন্ধু কর্ণার শুভ উদ্বোধন করেন। এছাড়া প্রতিমন্ত্রী এস এম ই ফাউন্ডেশন কর্তৃক আয়োজিত হেরিটেজ হ্যান্ডলুম ফেষ্টিভ্যাল ২০২০ এর ভার্চ্যুয়াল সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে যোগ দেন।

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা’র সভাপতিত্বে পুরষ্কার ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব (উপসচিব) মো: জাহিদুল ইসলাম, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ দাউদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার জেরিন আখতার বিপিএম, জেলা পরিষদ সদস্য সিংয়ং ম্রো, মোজাম্মেল হক বাহাদুর, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ইনষ্টিটিউট পরিচালক মংনু চিং প্রমুখ।

পরে বান্দরবানে বসবাসরত ১১টি ক্ষুদ্র নৃজনগোষ্ঠীর শিশুদের অংশগ্রহণে মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন প্রতিমন্ত্রী। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরুতে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইনষ্টিটিউট এর ৩৩বছর উপলক্ষে প্রদিপ প্রজ্জলন করেন অতিথিবৃন্দ।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পাহাড়ে, বান্দরবান, সংস্কৃতি
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × 1 =

আরও পড়ুন