‘পাহাড়ে শতভাগ শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করা হবে’

fec-image

পাহাড়ের প্রতিটি কোনায় কোনায় বিদ্যালয় ও কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হবে, সকল সম্প্রদায়ের মাঝে শতভাগ শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া হবে এ কথা বলেন, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস।

পানছড়ি উপজেলার ২নং চেংগী ইউপির সীমান্তবর্তী খরাং শিং পাড়া, শাম্ভুকরায় পাড়া, শনখোলা, হারুবিল, কিষ্টমনিপাড়া, বৌদ্ধমনিপাড়াসহ প্রায় আট থেকে নয় কিলোমিটার এলাকা জুড়ে নেই কোন নিম্ন বা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। ফলে এলাকায় ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের শেষ ঠিকানা ছিল প্রাথমিকের গণ্ডি। মাধ্যমিকের গণ্ডি ছিল সবার জন্য স্বপ্নের মতো। পাহাড়ের এই দুর্গম এলাকার শিক্ষার করুণ পরিণতির কাহিনী শুনে সরেজমিনে ছুটে আসেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস।

অবশেষে অভিভাবকদের মনের হতাশা দূর করে শাম্ভুকরায় পাড়া নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণের জন্য এক একর জায়গা নির্ধারণ করে পাঁচ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস।

তিনি বলেন, অবকাঠামো করে দেয়া হচ্ছে, কিন্তু বিদ্যালয়টি চালিয়ে নেয়ার দায়িত্ব এলাকাবাসীর। উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকেও পাকা ভবন করে দেয়ার আশ্বাস তিনি প্রদান করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন তিন পার্বত্য জেলার সংরক্ষিত আসনের মহিলা সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবাইয়া আফরোজ, সহকারী কমিশনার (ভুমি) মুহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মুমিন, ১নং লোগাং ইউপি চেয়ারম্যান জয় কুমার চাকমা, ২নং চেংগী ইউপি চেয়ারম্যান আনন্দজয় চাকমা প্রমুখ। এলাকার অমর শিংহ ত্রিপুরা, খগেন্দ্র ত্রিপুরা, কমল ত্রিপুরা, অভি রঞ্জন ত্রিপুরা, দিলীপ ত্রিপুরা, কনারায় ত্রিপুরা জানায়, জেলা প্রশাসকের হাত ধরে বিদ্যালয় নির্মাণের ফলে এই এলাকার চিত্র এখন সম্পূর্ণ পাল্টে যাবে।

Print Friendly, PDF & Email
ঘটনাপ্রবাহ: পাহাড়, শতভাগ, শিক্ষা
Facebook Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 − 12 =

আরও পড়ুন